সীমান্ত শীল করে দিল চীন

সীমান্ত শীল করে দিল চীন

ভারত পাকিস্থানের পর এবার চীল ও পাকিস্থানের সম্পর্কে ক্ষত,সম্ত্রাসবাদী রুখতে নয়া পদক্ষেপ নিল চীন,তাই সীমান্ত সিল করারা সিদ্ধান্ত,সরকারকে উদ্ধৃত করে চিনের সরকারি সংবাদসংস্থা জিনহুয়া জানিয়েছে, এই অঞ্চলে জঙ্গিদের যাতায়াত রুখতে চলতি বছরে চিন-পাকিস্তান সীমান্ত বরাবর নিরাপত্তা আরও কঠোর করা হবে। জিনজিয়াংয়ের সীমান্ত অঞ্চলে জঙ্গি উপদ্রব বাড়ছে। এ ক্ষেত্রে এখানে জঙ্গিদের অনুপ্রবেশ রোধ করার ব্যাপারে পাকিস্তানের অক্ষমতা নিয়ে চিন যে অসন্তুষ্ট, তা জিনজিয়াং সরকারের সিদ্ধান্ত থেকে স্পষ্ট হয়ে উঠেছে বলে মনে করা হচ্ছে।জিনুয়ায় প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনে স্পষ্ট বলা হয়েছে, 'সন্ত্রাস মোকাবিলা করতে পাকিস্তান সীমান্ত সিল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জিনজিয়াংয়ের সরকার'। এও বলা হয়, 'সীমান্ত পেরিয়ে বেআইনি ভাবে যারা পাকিস্তান পেরিয়ে চিনে প্রবেশ করছে এবং চিন সীমান্তে থাকছেন', তাদের যাতায়েতের ওপর কঠোর হবে চিনা প্রশাসন।  জানা গিয়েছে, গত ২৮ ডিসেম্বর হোতান প্রদেশে হামলার পেছনে হাত ছিল এদের৷ যে হামলায় মৃত্যু হয়েছিল পাঁচ নাগরিকের৷ পারস্পরিক সম্পর্ক বজায় রাখার জন্য চিন-পাকিস্তানের বিদেশ মন্ত্রক কথাবার্তা চালাচ্ছে৷ কিন্তু বর্তমানে চিনের মাথা ব্যথা হয়ে দাঁড়াচ্ছে পাকিস্তান ও আফগানিস্তানের তালিবানসহ বিভিন্ন সন্ত্রাসবাদী গোষ্ঠী৷চিন ও পাকিস্তানের বিদেশমন্ত্রীরা দুই দেশের ঘনিষ্ট বন্ধুত্বের কথা বললেও জিনজিয়াংয়ের নেতৃবৃন্দের মধ্যে জঙ্গি উপদ্রব নিয়ে উদ্বেগ বাড়ছে। তাঁরা স্থানীয় জঙ্গিদের সঙ্গে পাকিস্তান ও আফগানিস্তানের তালিবান ঘাঁটিগুলির যোগাসাজশ নিয়ে রীতিমতো আতঙ্কিত।চিনা প্রশাসন সূত্রে খবর, দেশে ঢোকা ও বেড়ানোর পথ যাতে আরও নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তায় মুড়ে পেলা যায় সেই চেষ্টাই চালান হচ্ছে৷চিনে যে সমস্ত সন্ত্রাসী হানা হয়েছে তার বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই বিদেশে প্রশিক্ষণ নিয়েছে জঙ্গিরা৷ প্রশিক্ষণ নিয়ে বেআইনি পথে আবার দেশে ঢুকেছে তারা৷ এক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়েছে জিংজিয়াং প্রদেশের সীমান্তকে৷ পাক সীমান্ত সংলগ্ন কাশগড় প্রিফেকচারের কমিউনিস্ট পার্টির প্রধান সহ অন্যান্য আধিকারিকরা পাকিস্তান থেকে জঙ্গি অনুপ্রবেশ বন্ধ করার ওপর গুরুত্ব আরোপ করেছেন।