আসামের হিমা এখন ধনী

আসামের হিমা এখন ধনী

আসামের প্রত্যন্ত গ্রাম থেকে তাঁর উঠে আসা। নগাঁও জেলার ঢিং গ্রাম থেকে বিশ্বের দরবারে নিজেকে তুলে ধরেছেন হিমা দাস। অনূর্ধ্ব-২০ বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপের ৪০০ মিটারে সোনা জিতে হিমা নাম তুলেছেন ইতিহাসে। হিমার বাবা সাধারণ চাষের কাজ করেন ৷ বিশ্ব মানের অ্যাথলেটিক্সে সেরাটা দিতে গেলে যে বিশাল খরচ প্রয়োজন তা তার পক্ষে যোগান দেওয়া সম্ভব নয় ৷  হিমার ভবিষ্যত নিশ্চিত করে দিল এক স্পোর্টস ম্যানেজমেন্ট সংস্থা। হিমার সঙ্গে দুবছরের চুক্তি করল তারা। হিমাকে কোটি টাকার চুক্তি করল এই সংস্থা ৷

এর আগে ভারতীয় অ্যাথলিটদের মধ্যে বক্সার মেরি কম, বিজেন্দর সিং, টেবল টেনিসের তারকা মনিকা বাত্রা, বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ভারত্তোলক মীরাবাঈ চানুর সঙ্গে কয়েক কোটি টাকার চুক্তি করেছিল সেই সংস্থা। এবার হিমা দাসও সেই তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হলেন। ফলে স্বাভাবিকভাবেই ভারতের এই সোনার মেয়ের ভবিষ্যত নিয়ে আর কোনও চিন্তা রইল না।

হিমা প্রথম ভারতীয় মেয়ে যে ৫১.৪৬ সেকেন্ডে ৪০০ মিটার দৌড়ে বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে সোনা জিতেছিলেন ৷ হিমা বলছেন, ''দেশের অন্যতম সেরা স্পোর্টস ম্যানেজমেন্ট সংস্থার সঙ্গে যুক্ত হতে পেরে আমি খুশি। এর পর আমাকে আর নিজের ভবিষ্যত নিয়ে ভাবতে হবে না। এখন আমি শুধু ট্রেনিং আর প্রতিযোগিতা নিয়ে থাকতে পারব। সামনে অনেকগুলো বড় চ্যাম্পিয়নশিপ রয়েছে। সেগুলোতে চ্যাম্পিয়ন হওয়াই আমার এখন প্রাথমিক লক্ষ্য।''