যোগাসন শেখাতে পারবেন না মুসলিম মহিলা, প্রাণনাশের হুমকি মৌলবির

যোগাসন শেখাতে পারবেন না মুসলিম মহিলা, প্রাণনাশের হুমকি মৌলবির

যোগাসন শেখাতে পারবেন না মুসলিম মহিলা। রাফিয়া নাজ নামে এক জনপ্রিয় মহিলা যোগাসন শিক্ষিকাকে এমনই হুমকি দেওয়ার অভিযোগ উঠল মুসলিম সংগঠনের এক মৌলবির বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে ঝাড়খণ্ডে। জানা গিয়েছে, ওই যোগা শিক্ষিকা বাবা রামদেবের সঙ্গে একইমঞ্চে যোগাসন শেখান। কিন্তু তাঁর অভিযোগ, যোগাসন শেখানো তাঁকে বন্ধ করতে ফতোয়া জারি করেছেন মুসলিম সমাজেরই একাংশ। হুমকি দেওয়া হচ্ছে, অবিলম্বে যোগাসন শেখানো বন্ধ না করলে তাঁকে হত্যা করা হবে। মহিলাদের যোগাসন শেখানোর অনুমতি দেয় না ইসলাম, এই দাবিতে রাফিয়ার বিরুদ্ধে জারি হয়েছে ফতোয়া।
রাফিয়া তাঁর অভিযোগ জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী রঘুবর দাস ও মুখ্যসচিব সঞ্জয় কুমারের কাছে। প্রশাসনের নির্দেশ মতো রাফিয়ার নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। রাঁচি পুলিশের এসএসপি কুলদীপ দ্বিবেদীর নির্দেশে পুলিশের একটি দলকে রাফিয়ার বাড়িতে পাঠানো হয়েছে। এবার থেকে তাঁর সঙ্গে সর্বক্ষণ এক মহিলা ও এক পুরুষ পুলিশকর্মী থাকবেন বলে আশ্বাস দেওয়া হয়েছে। রাঁচির দোরান্দা এলাকার বাসিন্দা রাফিয়ার সংসারই চলে তাঁর যোগাসন শেখানোর অর্থে। স্থানীয় কলেজ থেকে এম.কম পাশ করার পর থেকেই পরিবারের ভাইবোনেদের মধ্যে সবচেয়ে বড় রাফিয়া যোগাসন শিখিয়ে সংসার চালান।
সম্প্রতি যোগগুরু রামদেব ঝাড়খণ্ডে এলে তাঁর সঙ্গে একই মঞ্চে রাফিয়া যোগাসন শিখিয়েছেন। মুসলিম ওই যোগাসন শিক্ষিকা বলছেন, ' মুসলিম সমাজ আমার যোগাসন শেখানো নিয়ে প্রথম থেকেই প্রবল আপত্তি তুলছিল। কিন্তু এবার রীতিমতো ফতোয়া জারি করে আমাকে প্রাণে ও ভাতে মারার পরিকল্পনা হচ্ছে। 'তাঁর আক্ষেপ, এমনিতেই তিনি মুসলিম বলে সমাজের অনেকেই তাঁদের সন্তানদের রাফিয়ার কাছে যোগাসন শেখাতে পাঠান না। এখন আবার ফতোয়া জারি হওয়ায় তাঁর ক্লাসে কেউই আসবেন না ভেবে সর্বক্ষণ আতঙ্কে রয়েছেন তিনি। তবে প্রাণ থাকা পর্যন্ত তিনি যোগাসন চালিয়ে যাবেন বলেও বার্তা দিয়েছেন।