” নারী-পুরুষ ভাগভাগি করে ৪.৫ মাস গর্ভধারণ করে না কেন? “, প্রশ্ন এক মৌলবীর

” নারী-পুরুষ ভাগভাগি করে ৪.৫ মাস গর্ভধারণ করে না কেন? “, প্রশ্ন এক মৌলবীর

তৎক্ষণাৎ তিন তালাক পদ্ধতি তুলে দিয়েছে কেন্দ্র সরকার। এবার হজ যাত্রাতেও নতুন নিয়ম আনতে চলেছে কেন্দ্র। তাতে করে মহিলা হজযাত্রীদের আর পুরুষদের সাহায্য নিয়ে হজে যেতে হবে না। তারা একাই যেতে পারবেন। ৪৫ বছরেরে বেশি বয়সি মহিলাদের হজে যাওয়ার ক্ষেত্রে সঙ্গে পুরুষ আত্মীয় না থাকলেও চলবে। এই ঘোষণার পরই ক্ষিপ্ত মৌলবিরা। জামিয়ত উলামার সেক্রেটারি প্রশ্ন তুলেছেন, নারী পুরুষের যদি সমান অধিকার, তাহলে তারা ভাগভাগি করে ৪.৫ মাস গর্ভধারণ করে না কেন?
হজ যাত্রার ক্ষেত্রে মহিলাদের সঙ্গে কোনও একজন পুরুষ আত্মীয় থাকবে। দীর্ঘদিনের এ নিয়মে ইতি পড়েছে। সমানাধিকারের প্রসঙ্গেই জানানো হয়েছে, ৪৫ বছরের বেশি বয়সি মহিলাদের ক্ষেত্রে কোনও সঙ্গীর দরকার নেই। তাঁরা একাই হজে যেতে পারেন। সংখ্যালঘু উন্নয়ন মন্ত্রী মুখতার আব্বাস নাকভি জানিয়েছিলেন, পুরুষ আত্মীয় ছাড়াই ৪৫ পেরনো মুসলিম মহিলারা দলবদ্ধভাবে হজে যেতে পারবেন। তবে সেই দলে চারজন বা তার বেশি মহিলা থাকতে হবে। হজ রিভিউ কমিটির চেয়ারম্যান, অবসরপ্রাপ্ত আইএএস অফিসার আফজল আমানুতুল্লা বলেন, ' একশ্রেণির মুসলিমরা পুরুষ আত্মীয় ছাড়া মহিলাদের হজে যেতে দেন না। অন্য শ্রেণির মুসলিমরা আবার তা করেন না। তবে সরকার ৪৫ পেরোনো মুসলিম মহিলাদের পুরুষ আত্মীয় ছাড়া দলবদ্ধভাবে হজে যাওয়ার অনুমতি দেবে। এখন মুসলিমরা সেই সুযোগ নেবে কিনা, তা তাঁদেরকেই ঠিক করতে হবে। কেন্দ্রীয় সরকার জোর করে কোনও কিছু চাপিয়ে দেবে না। ' 
এ নিয়েই এবার তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করলেন এই মৌলবি। 
তাঁর কথায়, তাহলে পুরুষ নারী ভাগাভাগি করে গর্ভধারণ করে না কেন? অর্থাৎ তাঁর দাবি, সমান অধিকার দিতে গেলে তাহলে পুরুষদেরও গর্ভধারণ করতে হবে। তাঁর এই ক্ষোভ মূলত পুরুষদের প্রতিই। যে পুরুষরা নারীর সমান অধিকার দাবি করেন, তাঁদের উদ্দেশ্যেই এই বিষোদ্গার মৌলবির। যাঁরা নারীকে সমান অধিকার দিতে চান। তাঁরা নারীর গর্ভধারণের অর্ধেক ভার নিক, এমনটাই দাবি মহারাষ্ট্রের এই মুসলিম সংগঠনের প্রধানের।