তাত্ক্ষণিক তিন তালাক দিলে স্বামীর ৩ বছরের জেল, আইন আনতে চলেছে কেন্দ্র

তাত্ক্ষণিক তিন তালাক দিলে স্বামীর ৩ বছরের জেল, আইন আনতে চলেছে কেন্দ্র

তাত্ক্ষণিক তিন তালাক দিলে এবার আর রেহাই নেই, সোজা গারদের ওপারে। হতে পারে তিন বছরের জেল। এমন আইনই চাআনতে চলেছে কেন্দ্র। তিন তালাককে বেআইনি ঘোষণা করেছে সুপ্রিম কোর্ট। শীর্ষ আদালতের নির্দেশ মেনে অবিলম্বে তিন তালাকের মতো ঘৃণ্য প্রথার বিরুদ্ধে কড়া আইন আনতে চলেছে কেন্দ্র। সেই নয়া আইনের খসড়াই সম্প্রতি সংবাদ সংস্থা পিটিআইয়ের হাতে এসেছে। খসড়ায় সুপারিশ করা হয়েছে, যে ব্যক্তি তাঁর স্ত্রীকে তাত্ক্ষণিক তিন তালাকের মাধ্যমে বিচ্ছেদ দিতে চাইবেন, তাঁর তিন বছরের জেল হতে পারে।
ইতিমধ্যেই নয়া আইনের খসড়া সবক'টি রাজ্যের কাছে পাঠানো হয়েছে, রাজ্যগুলির মতামত নেওয়ার জন্য। খসড়াটি তৈরি করেছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংয়ের নেতৃত্বাধীন মন্ত্রিগোষ্ঠী। ওই গোষ্ঠীতে রয়েছেন বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ, অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি, আইনমন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ-সহ প্রমুখরা। নয়া আইন তাঁদের উপরই প্রযোজ্য হবে, যাঁরা তিন তালাক বলে ততক্ষণাৎ স্ত্রীকে ডিভোর্স দিতে চাইবেন। সেক্ষেত্রে ওই স্ত্রী ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে গিয়ে নিজের ও নিজের সন্তানের জন্য খোরপোষ আদায়ের দাবি জানাতে পারবেন।
পিটিআই সূত্রে খবর, নয়া আইন প্রয়োগ হবে শুধুমাত্র তাঁদের উপরই যাঁরা তালাক-এ-বিদ্দত’ চাইবেন। আক্রান্ত মহিলা তাঁর স্বামীর কাছ থেকে নাবালক সন্তানকে নিজের কাছে রাখার দাবিও পেশ করতে পারতেন ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে। তবে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন দায়িত্বপ্রাপ্ত ম্যাজিস্ট্রেটই। নয়া আইনে ইমেল, এসএমএস বা হোয়াটসঅ্যাপে তালাক দেওয়া বেআইনি বলে গ্রাহ্য হবে। অভিযুক্ত স্বামী স্ত্রীকে বাড়ি ছেড়ে বেরিয়ে যেতে বলতে পারবেন না। সেক্ষেত্রে আক্রান্ত শ্বশুরবাড়িতে থাকার জন্য বিশেষ নিরাপত্তার দাবি জানাতে পারেন প্রশাসনের কাছে। জম্মু ও কাশ্মীর ছাড়া দেশের সর্বত্র নয়া আইন বলবৎ হলে ‘তিন তালাক’ দিলে অভিযুক্তর বিরুদ্ধে জামিন অযোগ্য ধারায় মামলা রুজু হবে। 
গত আগস্ট মাসে সুপ্রিম কোর্টের পাঁচ বিচারপতির সাংবিধানিক বেঞ্চ এক ঐতিহাসিক রায়ে তিন তালাককে কার্যত অবৈধ বলে ঘোষণা করেন। আদালতের পর্যবেক্ষণ, দ্রুতই এই বিষয়ে আইন আনতে হবে সরকারকে। আগামী ৬ মাসের জন্য দেশজুড়ে তিন তালাকের উপর স্থগিতাদেশ জারি হয়েছে। এই সময়সীমার মধ্যে কোনও মহিলাকে তাঁর মুসলিম স্বামী ‘তিন তালাক’ দিতে পারবেন না বলে জানিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। 
তবে শীর্ষ আদালতের নির্দেশকে অমান্য করে এখনও বেশ কয়েক জায়গায় তিন তালাক দেওয়া চলছে বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে। শীর্ষে রয়েছে উত্তরপ্রদেশ।