তিন তালাকের বিরোধিতা করায় ফতোয়া জাতি উত্তরপ্রদেশের এক মহিলার বিরুদ্ধে

তিন তালাকের বিরোধিতা করায় ফতোয়া জাতি উত্তরপ্রদেশের এক মহিলার বিরুদ্ধে

তিল তালাকের বিরোধিতা করায় মুসলিম মহিলার বিরুদ্ধে ফতোয়া জারি করলেন মৌলবীরা। ঘটনাটি ঘটেছে উত্তরপ্রদেশের বরেলিতে। জানা গিয়েছে, ওই মহিলার নাম নিদা খান। তাঁর একটিই অপরাধ, তিনি তিন তালাক প্রথার বিরোধিতা করেছিলেন। তার ফলস্বরূপ ফতোয়া জারি করা হয় তার বিরুদ্ধে।

ওই ফতোয়ায় বলা হয়, মুসলিম সমাজের কেউ তাঁ সঙ্গে যোগাযোগ রাখবে না। অসুখ হলে মিলবে না ওষুধ। এমনকী কবরস্থানেও অন্তিমে জায়গা হবে না।  এমনকী শেষ দিনে কেউ তাঁর জন্য নমাজ পড়বেন না। 

জানা গিয়েছে, নিদা খান নামে ওই মহিলা নিজে তিন তালাকের শিকার হয়েছিলেন। তাঁর স্বামী তাঁকে তিন তালাক দিয়েছিলেন বিয়ের এক বছরের মধ্যে। তাঁর উপর এমন অত্যাচার চালানো হয়েছিল, যাতে তাঁর গর্ভপাত হয়। বছরখানেকের মধ্যেই তাঁদের বিচ্ছেদ হয়। কিন্তু তাতে ভেঙে পড়েননি ওই মহিলা। বরং তিন তালাকের শিকার হওয়া মহিলাদের একত্রিত করে একটি সংগঠন গড়ে তুলেছেন। যাতে নির্যাতিতারা বিচার পায়। আর তাতেই মৌলবিদের রোষের মুখে পড়েছেন তিনি।

এই ফতোয়ার পরিপ্রেক্ষিতে নিদা খান ভয় পাননি বরং মোকাবিলা করার মানসিকতা নিয়েই এগোচ্ছেন। তিনি ফতোয়া জারি করেছেন তাঁর পাকিস্তানে চলে যাওয়া উচিত। কারণ ভারত গণতান্ত্রিক দেশ। এখানে কেউ কারও উপর জুলুম করতে পারেনা। একমাত্র আল্লাই বিচার করতে পারেন যে, কে প্রকৃত দোষী।