মুসলিম সম্প্রদায়ের ব্যক্তি কালীমন্দির গড়তে এগিয়ে এলেন বর্ধমানের আউশগ্রামে

মুসলিম সম্প্রদায়ের ব্যক্তি কালীমন্দির গড়তে এগিয়ে এলেন বর্ধমানের আউশগ্রামে

সম্প্রীতির অনন্য নজির গড়ল পূর্ব বর্ধমানের আউশগ্রামের এক মুসলিম ব্যক্তি। গ্রাম রক্ষীবাহিনী থানা চত্বরে কালীপুজো করে আসছে বহুবছর ধরে। আউশগ্রামের ছোড়া পুলিশ ফাঁড়ি এখন স্থানান্তরিত হয়েছে অন্যত্র। ভাঙা পড়েছে পুরনো কালীমন্দির। তবে মাতৃ আরাধনায় বিঘ্ন ঘটাতে দেননি এলাকার এই মুসলিম প্রতিনিধি। আউশগ্রামে নবনির্মিত ছোড়া থানার পাশে নতুন কালীমন্দির নির্মাণে এগিয়ে এসেছেন মা কালীর ভক্ত লালন শেখ। গেঁড়াই গ্রামের বাসিন্দা পেশায় ব্যবসায়ী লালন শেখ নিজ খরচে তৈরি করাচ্ছেন কালীমন্দির। খরচও কম নয়, প্রায় ৬ লক্ষ টাকা। লালনের এই উদ্যোগে মুগ্ধ আউশগ্রামবাসী।
কিন্তু কেন এমন সিদ্ধান্ত নিলেন লালন? এই উদ্যমী বলছেন, ' লালন ফকিরের নামে আমার বাব-মা নাম রেখেছিলেন। লালন নামটিই তো সর্বধর্ম সমন্বয়ের প্রতীক। আমি এই আদর্শেই বড় হয়েছি। আমার মনের তৃপ্তির জন্যই মায়ের মন্দির করছি। ' লালন শেখের দুই ছেলে, এক মেয়ে। তিনজনেই পড়াশোনা করছে। বড় ছেলে আফজল রহমান ওরফে সঞ্জু বি টেক ছাত্র। তিনি বলেন, ' বাবার এই মহৎ কাজে আমরাও গর্বিত। কালীপুজোর সময় খুব আনন্দ হবে। '