দেশে গণপিটুনিতে খুন হলেও ক্ষমতায় আসবে বিজেপিই, রাজস্থানে ভোটের প্রচারে গিয়ে বললেন অমিত শাহ

দেশে গণপিটুনিতে খুন হলেও ক্ষমতায় আসবে বিজেপিই, রাজস্থানে ভোটের প্রচারে গিয়ে বললেন অমিত শাহ

মঙ্গলবার ১১ সেপ্টেম্বর ছিল স্বামী বিবেকানন্দের শিকাগো সম্মেলনের ১২৫ বছর পূর্তি। ১২৫ বছর আগে এই দিনটিতেই শিকাগোতে সহিষ্ণুতার বাণী শুনিয়েছিলেন স্বামী বিবেকানন্দ। আর ১২৫ বছর পর এই দিনটিতেই বিজেপি সর্বভারতীয় সভাপতি আমিত শাহ বললেন, দেশে গণপিটুনিতে খুন হয়ে গেলেও ক্ষমতায় আসবে বিজেপিই। 

সাম্নেই রাজস্থান নির্বাচন। তাই সেখানে প্রচারে গিয়েছিলেন আমিত শাহ। মঙ্গলবার রাজধানী জয়পুরে সভা করেন বিজেপি সভাপতি। বিজেপির ফের ক্ষমতায় ফেরার সম্ভাবনা নিয়ে আরও সুর চড়ান তিনি। এই প্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়েই টেনে আনেন উত্তরপ্রদেশের দাদরিতে গণপিটুনিতে হত্যার প্রসঙ্গ। দাদরিতে স্বঘোষিত গোরক্ষকদের হাতে মহম্মদ আখলাকের হত্যার অভিযোগ নিয়ে বেকায়দায় পড়েছিল নরেন্দ্র মোদী সরকার। দেশে অসহিষ্ণুতা বাড়ার প্রতিবাদে পুরস্কার ফিরিয়ে দেন বিশিষ্ট জনেদের একাংশ। কিন্তু তার পরেও গত বছরে উত্তরপ্রদেশে জয় পেয়েছে বিজেপি। রাজস্থানের অলওয়ারেও স্বঘোষিত গোরক্ষকদের হামলায় মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। রাজসমুন্দে অভিযোগ উঠেছে  ‘লাভ জেহাদ’-এ জড়িত সন্দেহে পুড়িয়ে মারার। রাজস্থানের বিজেপি সরকার এই ধরনের ঘটনা রুখতে কড়া পদক্ষেপ করছে না বলে অভিযোগ বিরোধীদের।

গতকাল জয়পুরের সভায় অমিত বলেন, ''যখনই ভোট আসে তখনই এক দল লোক আখলাক হত্যার প্রসঙ্গ তোলেন। বিশিষ্ট জনেদের একাংশ পুরস্কার ফিরিয়ে দেন। কিন্তু এ সব ঘটনায় বিজেপির জয় আটকানো যায়নি। আমরা আগেও জিতেছি। এ বারও জিতব।'' তাঁর কথায়, ''মানুষকে প্রশ্ন করুন তাঁরা রাহুল গাঁধীকে প্রধানমন্ত্রী, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে বিদেশমন্ত্রী আর মুলায়ম সিংহ যাদবকে প্রতিরক্ষামন্ত্রী হিসেবে দেখতে চান কি না?'' 

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, বিজেপির ৫০ বছর দেশ শাসনের সম্ভাবনা প্রসঙ্গে কংগ্রেসের মুখপাত্র বলেছিলেন, ''মুঙ্গেরিলাল কি হাসিন স্বপ্নে সিরিয়ালের মুখ্য চরিত্রের মতোই দিবাস্বপ্ন দেখছেন অমিত।'' এই প্রসঙ্গে বিজেপি সভাপতি বলেন, ''কংগ্রেসের নেতারা সব নার্সারি রাইমের হাম্পটি ডাম্পটির মতো চরিত্র। অহঙ্কার ছাড়া তাঁদের মাথায় কিছু নেই।''