ছত্তিশগড়ে ৬২ মাওবাদীর আত্মসমর্পণ, শীর্ষ পদে আসীন বাশ্বরাজ

ছত্তিশগড়ে ৬২ মাওবাদীর আত্মসমর্পণ, শীর্ষ পদে আসীন বাশ্বরাজ

পাঁচ রাজ্যে নির্বাচনের মুখেই বড়সড় রদবদল হলে সিপিআই(মাওবাদী)-র সাংগঠনিক স্তরে। নরমপন্থী মাও নেতা গণপতি তাঁর পদ থেকে সরে দাঁড়ালেন। তার পরিবর্তে দলের সাধারণ সম্পাদক পদে এলেন আগ্রাসী মানসিকতার নেতা নাম্বালা কেশব ওরফে বাশ্বরাজ। বেশ কিছুদিন ধরেই দলের সাংগঠনিক দুর্বলতা, এবং শক্তিহ্রাস নিয়ে চাপে ছিলেন গণপতি। সংগঠনে প্রভাব বাড়ছিল বাশ্বরাজের। এই পরিস্থিতিতে নিজেই সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নেন গণপতি। 

মাও নেতৃত্বে এই রদবদলের কথা উঠে এসেছে অন্ধ্রপ্রদেশ পুলিশের তদন্তে। উল্লেখ্য, পুলিশের খাতায় দুই নেতাই মোস্ট ওয়ান্টেড। গণপতির সন্ধান দিলে ১৫ লক্ষ এবং বাশ্বরাজের ক্ষেত্রে তা ১০ লক্ষ টাকা।

ক্ষমতায় অভিষেকের আগেই অবশ্য নিজে মানসিকতা পরিষ্কার করে দিয়েছেন বাশ্বরাজ। গত সেপ্টেম্বর মাসেই নক্সালদের গুলিতে বিশাখাপত্তনমে নিহত হন টিডিপি বিধায়ক কে সর্বেশ্বর রাও ও প্রাক্তন বিধায়ক এস সোমা। বেশ কিছুদিন শান্ত থাকার পর হঠাৎ করেই আগ্রাসী হয়ে ওঠে মাওবাদীরা। পুলিশি তদন্তে জানা গিয়েছে, মাও নেতা বাশ্বরাজ-এর কারণেই মাওবাদীরা এতটা আগ্রাসী হয়ে উঠেছে। সামনেই ভোট ছত্তিশগড়-সহ পাঁচ রাজ্যে। নির্বাচনে অশান্তির সম্ভাবনা রয়েছে।

উল্লেখ্য, মাওবাদী অধ্যূষিত অঞ্চলে নির্বাচনের জন্য বিশেষ নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে।হিংসা এড়াতে ছত্তিশগড়ে মাও অধ্যূষিত এলাকার ১৮ টি আসনের জন্য একটি আলাদা দফায় নির্বাচনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এই পরিস্থিতিতে নিরাপত্তাবাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করলেন ৬২ জন মাওবাদী গেরিলা। এতে সংগঠনটির কিছুটা হলেও শক্তিক্ষয় হয়েছে, তাই এবার বাশ্বরাজের নেতৃত্বে কি পদক্ষেপ নেওয়া হবে সেটাই দেখার।