ভারতে ঘুরতে এসে রাজধানীতে শ্লীলতাহানির শিকার এক মার্কিন ব্লগার

ভারতে ঘুরতে এসে রাজধানীতে শ্লীলতাহানির শিকার এক মার্কিন ব্লগার

এসেছিলেন এই দেশকে আরও কাছ থেকে জানতে। কিন্তু তার পরিনতি যে এরকম হবে তা বোধহ্য ভাবতেই পারেননি এক মার্কিন ব্লগার। জর্ডন টেলার নামে ওই মহিলা সাধারণত ভ্রমণ অভিজ্ঞতা নিয়ে লেখালেখি করেন৷ তাই ভারতে এসেছিলেন তাঁর ভ্রমনের অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করতে। কিন্তু রাজধানীতে তিনি শ্লীলতাহানির শিকার হন। একটি ভিডিও প্রকাশ করে সেকথা  জানিয়েছেন তিনি৷ ব্লগারের প্রকাশিত ওই ভিডিও সোশ্যাল সাইটে ভাইরাল হয়েছে৷

দিনকয়েক আগে বেড়ানোর উদ্দেশ্যে প্রেমিকের সঙ্গে রাজধানীতে আসেন জর্ডন টেলার৷অনলাইন এক সংস্থার মাধ্যমে হোটেল ভাড়া নেন তিনি৷ চারদিন আগেই জর্ডনের প্রেমিক মার্কিন মুলুকে চলে যান৷ এদেশে থেকে যান জর্ডন৷ বিমানবন্দরে প্রেমিককে ছেড়ে দিয়ে ফেরার সময় থেকেই রাজধানীতে তিক্ত অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হন ওই ব্লগার৷ তাঁর অভিযোগ, বিমানবন্দর থেকে ফেরার পথে বেশ কয়েকজন যুবক তাঁর শ্লীলতাহানি করে৷ এমনকী, তাঁকে ধর্ষণেরও চেষ্টা করে ওই যুবকেরা৷ 

শুধু রাস্তাই নয়, দিল্লির পাহাড়গঞ্জে যে হোটেলে ছিলেন তিনি, সেখানেও হেনস্তার শিকার হন ওই বিদেশিনী৷ তাঁর অভিযোগ, এক হোটেল কর্মী রাতে তাঁর ঘরের দরজা খোলার দাবি করে৷ কিন্তু দরজা খোলেননি জর্ডন৷ ঘণ্টাখানেক পর ওই হোটেল কর্মী তাঁর ঘরের দরজার সামনে প্রচণ্ড শব্দ করে৷ তাতেও কোনও সাড়াশব্দ না পেয়ে ওই ঘরটির এসিও বন্ধ করে দেয় ওই হোটেল কর্মী৷ জর্ডন বলেন, ''এসি বন্ধ করার পরেও বেশ কিছুক্ষণ ওই যুবক আমার ঘরের আশেপাশে ঘোরাফেরা করছে বলে বুঝতে পারি৷ বন্ধ করে দেওয়া হয় আমার ঘরের ওয়াইফাই৷ ওই হোটেল কর্মীর উদ্দেশ্য যে ভাল নয়, তা ততক্ষণে স্পষ্ট হয়ে যায়৷ ফোনের মাধ্যমে হোটেল কর্তৃপক্ষকে গোটা ঘটনা জানাই৷ কিন্তু তাতেও কোনও লাভ হয়নি৷'' 

রাজধানীতে বেড়ানোর অভিজ্ঞতা নিয়েই ব্লগ লেখার ইচ্ছা ছিল জর্ডনের৷ কিন্তু এই ঘটনার পর নিরাশ হয়ে গিয়েছেন তিনি৷ নিজের দেশে ফেরার পর ভিডিও-র মাধ্যমে সোশ্যাল সাইটে অভিজ্ঞতা শেয়ার করেন জর্ডন৷ কোনও পুরুষ সঙ্গী ছাড়া একজন মহিলা কোনওভাবে রাজধানীতে সুরক্ষিত নন বলেই ভিডিওয় তুলে ধরেন ব্লগার৷ জর্ডনের অভিযোগের ভিত্তিতে অনলাইন সংস্থা ওই হোটেল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছে৷