ভুল স্যালাইনের জেরে পঙ্গু হলেন বৃদ্ধা, ৫ লক্ষ টাকা জরিমানা করা হলো হাসপাতালকে

ভুল স্যালাইনের জেরে পঙ্গু হলেন বৃদ্ধা, ৫ লক্ষ টাকা জরিমানা করা হলো হাসপাতালকে

ভুল স্যালাইন দেওয়ায় তীব্র প্রতিক্রিয়া শরীরে। যার জেরে পঙ্গু হয়ে গেলেন বৃদ্ধা। জানা গিয়েছে, না জেনেই স্যালাইনে বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল সোডিয়াম ক্লোরাইড। যার জেরে কার্যত পঙ্গু হুগলির কাবেরী সাহা (৫৩)। নষ্ট হয়ে গিয়েছে স্বাভাবিক অনুভূতি। ঠিকমতো কথা বলতে পারেন না। রাজ্য স্বাস্থ্য নিয়ন্ত্রক কমিশনের চেয়ারম্যান অসীমকুমার রায় জানিয়েছেন, আমরা সমস্ত কাগজপত্র খতিয়ে দেখেছি। শরীরে সোডিয়ামের মাত্রা ঠিক থাকলেও তাঁকে অতিরিক্ত সোডিয়াম ক্লোরাইড যুক্ত স্যালাইন দেওয়াতেই এই অবস্থা। স্নায়ুতন্ত্রকে অকেজো করে দিয়েছে ভুল স্যালাইন। আরামবাগের এমএ গনি হাসপাতালের এই গাফিলতির কারণে তাদের ৫ লক্ষ টাকা জরিমানা করল রাজ্যের স্বাস্থ্য নিয়ন্ত্রক কমিশন।

ঘটনাটি ঘটেছিল গত বছরে। ২৫ মার্চ বাড়িতেই অসুস্থ হয়ে পড়েন কাবেরী দেবী। তাঁর ছেলে সুদীপ্ত সাহা জানিয়েছেন, মা ঝিমিয়ে পড়ছিলেন। কোনও কাজে এনার্জি পেতেন না। স্থানীয় চিকিৎসক দিলীপ সরকারকে দেখানো হলে তিনি পরামর্শ দেন অবিলম্বে কাবেরী দেবীকে হাসপাতালে ভর্তি করতে। সেইমতো তাঁকে আরামবাগের এমএ গনি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চারদিন ভর্তি ছিলেন তিনি। সুদীপ্ত ভেবেছিলেন চারদিন পর সুস্থ মাকে বাড়িতে নিয়ে আসবেন।

তিনি জানান, মাকে আনতে গিয়ে দেখলাম শরীরের অবস্থা আগের চেয়ে আরও খারাপ। কথা বলতে পারছিলেন না। চোখ মোছেন সুদীপ্ত। এরপরই মাকে যাদবপুরের এক বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যান তিনি। সেখানে দীর্ঘ পরীক্ষার পর বলা হয়, ভুল স্যালাইনের জন্যই আজ এই অবস্থা কাবেরী দেবীর। ২৬ এপ্রিল স্বাস্থ্য নিয়ন্ত্রক কমিশনে এমএ গনি হাসপাতালের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন সুদীপ্ত। কমিশন হাসপাতালের চিকিৎসা সংক্রান্ত কাগজপত্র চেয়ে পাঠায়। কাগজপত্র দেখেই চক্ষু চড়কগাছ কমিশনের কর্তাদের। দেখা যায় মেডিক্যাল নোটে যে স্যালাইনের কথা লেখা রয়েছে তা হাইপোটনিক স্যালাইন! শরীরে সোডিয়ামের মাত্রা ১১০ থেকে ১১৫-এ নেমে গেলে তবে এই স্যালাইন দেওয়া হয়। কিন্তু হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার সময় কাবেরী দেবীর শরীরে সোডিয়াম মাত্রা ছিল ১২৪।

কমিশনের চেয়ারম্যান অসীমকুমার রায় জানিয়েছেন, ভুল স্যালাইন দিয়ে রোগীকে পঙ্গু করে দিয়েছে হাসপাতাল। ঘটনায় ডেকে পাঠানো হয়েছিল কর্তব্যরত চিকিৎসককে। তিনি দোষ চাপিয়েছেন এক গ্রুপ ডি স্টাফের ঘাড়ে। যা দেখে আরও ক্ষুব্ধ কমিশন। অসীমকুমার রায় জানিয়েছেন, হুগলি জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিককে বলা হয়েছে আগামী তিন মাসের মধ্যে সমস্ত বেসরকারি হাসপাতালের রিপোর্ট জমা দিতে। ক্লিনিক্যাল এস্টাব্লিশমেন্ট অ্যাক্ট মেনে সকলে কাজ করছে কি না তাও দেখতে বলা হয়েছে।