সোয়াইন ফ্লু-তে আক্রান্ত হয়ে কলকাতার হাসপাতালে মৃত্যু হল বাঁকুড়ার দুইজনের

সোয়াইন ফ্লু-তে আক্রান্ত হয়ে কলকাতার হাসপাতালে মৃত্যু হল বাঁকুড়ার দুইজনের

আবারও সোয়াইন ফ্লু-র আতঙ্ক ছড়াল। কলকাতার একটি হাসপাতালে সোয়াইন ফ্লু-তে আক্রান্ত হয়ে প্রাণ গেল দু’জনের। একজন শিশু আর একজন বৃদ্ধ। মৃতদের বাড়ি বাঁকুড়ায়। জানা গিয়েছে, আজ বুধবার সকালে পার্ক সার্কাসের একটি হাসপাতালে মারা যায় বছর সাতেকের এক শিশুর। ফুসফুসে সংক্রমণ ও সর্দি-কাশির উপসর্গ নিয়ে ১১ সেপ্টেম্বর ওই নার্সিংহোমে ভর্তি হয়েছিল সে। আগামী রবিবার তার জন্মদিন ছিল।

মৃতার নাম শ্রীতমা রায়। বাড়ি বাঁকুড়ার কোতলপুরে। পরিবারের লোকেরা জানিয়েছেন, গত ৪ সেপ্টেম্বর থেকে জ্বরে ভুগছিল শ্রীতমা। চিকিৎসা চলছিল। কিন্তু জ্বর কিছুতেই সারছিল না। উলটে শ্রীতমার শারীরিক অবস্থার আরও অবনতি হতে থাকে। 

১৫ সেপ্টেম্বর তাকে কলকাতায় পার্ক সার্কাসের একটি নার্সিংহোমে নিয়ে আসা হয়। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, শ্রীতমার ফুসফুসে প্রবল সংক্রমণ হয়েছিল। সর্দি-কাশির উপসর্গও ছিল। ভেন্টিলেশন রেখে ওই শিশুর চিকিৎসা চলছিল। বুধবার মারা যায় শ্রীতমা। 

এছাড়া বাঁকুড়া শহরের পাটপুরের বাসিন্দা তিয়াত্তর বছরের শংকরচন্দ্র মুখোপাধ্যায়ও সোয়াইন ফ্লু-তে আক্রান্ত হয়েছিলেন। শরীরে পটাশিয়াম ও সোডিয়ামের ঘাটতির কারণে অসুস্থ হয়ে পড়েন অবসরপ্রাপ্ত ওই পুলিশকর্মী। তাঁকে বাঁকুড়া শহরের একটি নার্সিংহোমে ভর্তি করা হয়। শারীরিক অবস্থা অবনতি হওয়ায় কলকাতার নার্সিংহোমে ভর্তি করা হয়।একদিন পর্যবেক্ষণে রেখে ওই বৃদ্ধকে বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে পাঠিয়ে দেন চিকিৎসক। শুক্রবার সে্খানেই মারা যান শংকরচন্দ্র মুখোপাধ্যায়। পরিবারের লোকেরা জানিয়েছেন, কলকাতার নার্সিংহোমে রক্ত পরীক্ষায় সোয়াইন ফ্লু ধরা পড়েছিল।