এসএসকেএম-এর বর্ধিত অংশ জোড়া হবে কলকাতা পুলিশ হাসপাতালের সঙ্গে

এসএসকেএম-এর বর্ধিত অংশ জোড়া হবে কলকাতা পুলিশ হাসপাতালের সঙ্গে

এসএসকেএম হাসপাতালের বর্ধিত অংশ হতে চলেছে কলকাতা পুলিশ হাসপাতাল। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় এই নির্দেশ দিয়েছেন এবং খুব শীঘ্রই এই প্রক্রিয়া শুরু হতে চলেছে বলে খবর। ৩০০ শয্যার এই হাসপাতাল এখন কার্যত খালি পড়ে থাকে। লালবাজার সূত্রের খবর, পুলিশকর্মীরা খুব কম ক্ষেত্রেই এখানে ভর্তি হন। বিমার সুবিধা নিয়ে বেশির ভাগই ভিড় জমান বেসরকারি হাসপাতালে। হাসপাতালটিকে কাজে লাগানোর জন্য বছর কয়েক আগে এখানে ঘটা করে ট্রমা সেন্টারের সূচনা হয়েছিল। কিন্তু সেই কাজ এগোয়নি। সাত জন ডাক্তার, চুক্তিভিত্তিক তিন জন আরএমও, এক জন অ্যানাস্থেটিস্ট, এক জন সার্জেন এবং এক জন ফিজিক্যাল মেডিসিনের ডাক্তার নিয়ে ধুঁকছে এই হাসপাতাল। গত আট বছরে প্রায় বারো-তেরো জন চিকিৎসক হয় অবসর নিয়েছেন, অথবা মারা গিয়েছেন। কিন্তু তাঁদের জায়গায় নিয়োগ হননি কেউ।
৩০০ শয্যার এই হাসপাতালে ১৫ শয্যার অফিসার্স ওয়ার্ড, ৭২ শয্যার সার্জিক্যাল ও মেডিক্যাল ওয়ার্ড রয়েছে। কিন্তু সেটা তো খালিই পড়ে আছে। অথচ সামান্য দূরত্বে রাজ্যের সুপার স্পেশ্যালিটি হাসপাতাল এসএসকেএমে রোগীর ভিড়ে পা ফেলার জায়গা নেই। শয্যার অভাবে মেঝেতেও ঠাঁই দিতে হয় রোগীকে। এই দুই পরিস্থিতিতে ভারসাম্য আনতেই মুখ্যমন্ত্রীর এই সিদ্ধান্ত বলে স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে।
দুই নম্বর বেণীনন্দন স্ট্রিটের ঠিকানায় বিশাল জায়গা জুড়ে এই হাসপাতাল। ম্যালেরিয়া, কালাজ্বর, প্লেগের মতো অসুখে পুলিশকর্মীদের চিকিৎসার জন্য ১৮৯৭ সালে আমহার্স্ট স্ট্রিটে ছোট আকারে হাসপাতালটির সূচনা হয়েছিল। স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, অবস্থান ও আয়তনের কথা মাথায় রেখে অনেক বেসরকারি হাসপাতালেরই ইদানীং নজর ছিল এ দিকে। মুখ্যমন্ত্রীর সিদ্ধান্তে তাই খুশি হাসপাতালের সব স্তরের কর্মীরাই।