ক্ষতস্থানে জোঁক বসিয়ে দিলেই রোগ সেরে যাবে

ক্ষতস্থানে জোঁক বসিয়ে দিলেই রোগ সেরে যাবে

ক্ষতস্থানে জোঁক বসিয়ে আলসার থেকে মুক্ত রোগী৷ শ্যামবাজারের জেবি হাসপাতালে এখনও পর্যন্ত জোঁক-চিকিৎসায় আলসার থেকে মুক্তি পেয়েছেন দেড়শো রোগী৷ অন্তত তেমনই দাবি পঞ্চকর্ম বিভাগের প্রধান অধ্যাপক পুলককান্তি করের৷

শুধু আলসার নয়, সাদাস্রাব, সোরিয়াসিসি, ফাইলেরিয়ার মতো রোগও সারছে 'লিচ থেরাপি' বা জোঁক-চিকিৎসায়। রাজাবাজারের শ্যামাদাস বৈদ্যশাস্ত্রপীঠেও এই পদ্ধতিতে রোগীদের চিকিৎসা চলছে৷ জেবি হাসপাতালে পঞ্চকর্ম বিভাগের প্রধান পুলককান্তি করের দাবি, ডায়াবেটিস, বিশেষ করে ডায়াবেটিক আলসার সারানোর ক্ষেত্রে অত্যন্ত কার্যকর চিকিৎসা পদ্ধতি জোঁক চিকিৎসা৷

কিভাবে কাজ করে এই জোঁক-চিকিৎসা? শরীরে্র পচনশীল অংশের দূষিত রক্ত দ্রুত শুষে নিয়ে নতুন রক্তা সঞ্চালনে সাহায্য করে জোঁক৷ এমনকী, রক্তে শর্করার মাত্রাও নিয়ন্ত্রণে রাখে৷ জোঁকের শরীর থেকে ডেস্টাবিলেস নামে এক ধরণের প্রোটিন প্রবেশ করে মানুষের দেহে৷ যা জীবাণুকে মেরে ফেলে৷ গবেষণা দেখা গিয়েছে, জোঁকের শরীরে থাকা নিউরোসিগন্যালিং এবং অ্যান্টি মাইক্রোবিয়াল পেপটাইড যে কোনও ধরনের সংক্রমণ কমাতে বিশেষ ভূমিকা নেয়। 
জয়েন্ট পেনেও দারুণ কাজ করে জোঁক থেরাপি। ব্যথার জায়গায় কিছুক্ষণ জোঁক রাখলে রক্ত সরবরাহের উন্নতি হয়। জানা গিয়েছে, এক একটি জোঁক ২ থেকে ১৫ মিলিলিটার রক্ত শুষতে পারে। সেই সঙ্গে মুখ থেকে এক ধরনের লালা মিশিয়ে দেয় রক্তে। যাতে হিরুডিন, ক্যালিক্রেইন, ক্যালিনের মতো কিছু উৎসেচক থাকে। যা রক্ত দুষিত হওয়া আটকায়।