হয়েছে কাশি কিন্তু ডাক্তার প্রেসক্রিপশনে লিখলেন অ্যান্টিসেপ্টিক লোশন!

হয়েছে কাশি কিন্তু ডাক্তার প্রেসক্রিপশনে লিখলেন অ্যান্টিসেপ্টিক লোশন!

হয়েছে কাশি কিন্তু প্রেসক্রাইব করা হলো অ্যান্টিসেপ্টিক লোশন! ঘটনাটি ঘটেছে পূর্ব মেদিনীপুরের শুলিয়া গ্রামীণ হাসপাতালে। কাশির ওষুধের বদলে বৃদ্ধ রোগীর প্রেসক্রিপশনে অ্যান্টিসেপ্টিক লোশনের নাম লিখে দিলেন চিকিৎসক। আর তাই পুরো বোতল খেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়লেন রোগী। 
মহিষাদলের বাসিন্দা ওই বৃদ্ধের কাশি বেড়ে ওঠায় তাঁকে হাসপাতালে নিয়ে যায় তাঁর পরিবার। বৃদ্ধের ছেলে নবকুমার সামন্তের অভিযোগ, কর্ত্যবরত চিকিৎসক তাঁর বাবাকে পরীক্ষা করে একটি সিরাপের নাম লিখে দেন প্রেসক্রিপশনে। সেই মতো তাঁর বাবা ওষুধটি কিনে পুরো বোতলই শেষ করে দিয়েছিলেন। তার পরেও কাশি না কমায় ফের সেটি কিনতে গেলে ওষুধের দোকানদার তাঁদের বলেন, এটা কাশির ওষুধ নয়, অ্যান্টিসেপ্টিক লোশন। এরপরই নবকুমার সেই প্রেসক্রিপশন এবং লোশনের বোতল সহ বাবাকে নিয়ে ফের বাশুলিয়া গ্রামীণ হাসপাতালেই যান। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ অবশ্য নিজেদের ভুল স্বীকার করে বৃদ্ধের চিকিৎসার যাবতীয় খরচ বহন করতে রাজি হয়েছে বলে জানিয়েছেন নবকুমার। পুলিশ মনে করছে, সামন্ত পরিবারের কেউ সাক্ষর না হওয়ার কারণেই এই ঘটনা ঘটেছে। সময়মতো চিকিৎসা শুরু হওয়ায় বৃদ্ধ এখন ভালো আছেন।