জরায়ুর নালিতে জড়িয়ে বাড়ছিল টিউমার, বিরল অস্ত্রোপচারে সুস্থ গাইঘাটার বধূ

জরায়ুর নালিতে জড়িয়ে বাড়ছিল টিউমার, বিরল অস্ত্রোপচারে সুস্থ গাইঘাটার বধূ

সন্তানসম্ভবা অবস্থায় জরায়ুতে টিউমার। অস্ত্রোপচারে ঝুঁকি রয়েছে। ক্ষতি হয়ে যেতে পারে ভ্রুনের। কারণ গর্ভাশয়ের যে জায়গায় টিউমারটি অবস্থান করছে, তার খুব কাছেই জরায়ুর নালি। অস্ত্রোপচারে সামান্য অঘটন ঘটলেই মা ও ভ্রূণের জন্য বাড়তে পারে বিপদ। তবে অস্ত্রোপচার হল। এখন বিপদ থেকে মুক্ত ওই গৃহবধু। 

জানা গিয়েছে, গাইঘাটার গৃহবধূ রুপালী ঢালি টিউমারের সমস্যা নিয়ে বনগাঁ হাসপাতালে ভরতি হয়েছিলেন। সফল অস্ত্রোপচারের পর মহালয়ার দিন বাড়ি ফিরে গেলেন ওই সন্তানসম্ভবা গৃহবধূ। গত মাসের ২৪ তারিখে পেটে অসহ্য যন্ত্রণা নিয়ে বনগাঁ হাসপাতালে ভর্তি হন ধরমপুরের কুলঝুটি গ্রামের ওই গৃহবধূ। ইউএসজি করতেই জানা যায় মা হতে চলেছেন রুপালীদেবী। জরায়ুতে কোনওরকম সমস্যা না থাকলেও ইউএসজি-তে টিউমারের সন্ধান মেলে। গর্ভাশয়ে শিকড় ছড়াচ্ছে আস্ত টিউমার।কিন্তু টিউমারের অবস্থান এতটাই জটিল যে বনগাঁ হাসপাতালে এই অস্ত্রোপচারের পরিকাঠামো নেই। এদিকে রোগীর অবস্থাও খারাপ, দূরে স্থানান্তর করা সম্ভব নয়। বেশ কিছুদিন টিউমারটিকে পর্যবেক্ষণে রাখলেন চিকিৎসকরা।

বেশ পুরনো টিউমার। জরায়ুর নালির সঙ্গে জড়িয়ে গিয়ে আকারেও বেড়েছে। বনগাঁ হাসপাতালের প্রসূতি বিভাগের চিকিৎসক মহীতোষ মণ্ডল এই অস্ত্রোপচার করেন। ২৪ তারিখেই অস্ত্রোপচার হয়। দিনদুয়েক বিশ্রামের পর চিকিৎসকরা দেখেন গৃহবধূর গর্ভের ভ্রূণ সুস্থ আছে। ভাল আছেন গৃহবধূও। এরপর টানা পর্যবেক্ষণে দেখা যায় গৃহবধূর যাবতীয় অঙ্গপ্রত্যঙ্গ সচল রয়েছে। মহালয়ার দিন বিকেলে হাসপাতাল থেকে ছুটি পেয়ে বাড়ি ফেরেন রুপালী।