২৩ তম জাতীয় চলচ্চিত্র উত্সবে এবারে রয়েছে বিশেষ আকর্ষন

২৩ তম জাতীয় চলচ্চিত্র উত্সবে এবারে রয়েছে বিশেষ আকর্ষন

মহা সমারোহে ২৩ তম জাতীয় চলচ্চিত্র উত্সবের সূচনা হল,ছিলেন তারকারাও,উদ্বোধন করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অমিতাভ বচ্চন, শাহরুখ খান, কমল হাসান, কাজল, মহেশ ভাট, কুমার শানু, সাবিত্রী চট্টোপাধ্যায় ও মাধবী মুখোপাধ্যায়৷ সঞ্চালনার দায়িত্ব সামলান পরমব্রত ও যিশু সেনগুপ্ত৷২৩তম চলচ্চিত্র উৎসবে ১৪২টি সিনেমা দেখানোর কথা রয়েছে। উত্সব চলবে ১৭ নভেম্বর।  পথের পাঁচালি, সুবর্ণরেখা থেকে সিনেমার ক্যামেরার বিবর্তনের ইতিবৃত্ত দেখা যাবে এই প্রদর্শনীতে। চলচ্চিত্র উৎসবে এই প্রদর্শনী আপনাকে ফিরিয়ে নিয়ে যাবে ইতিহাসের পাতায়। যা পরবর্তী প্রজন্মকেও ভারতীয় সিনেমার এক উজ্জ্বল অধ্যায়ের সঙ্গে পরিচয় ঘটাবে।

 

সেই করে লুমিয়ের ব্রাদার্স তৈরি করেছিলেন অ্যারাইভাল অফ দ্য ট্রেন। সূচনা হয়েছিল চলচ্চিত্রের। পরবর্তী সময়ে হীরালাল সেন ও দাদাসাহেব ফালকের হাত ধরে ভারতে শুরু হল চলচ্চিত্র। চলচ্চিত্রের প্রধান যে হাতিয়ার সেই ক্যামেরার বিবর্তন নিয়ে প্রদর্শনী সে ভাবে হয়নি। এবার হল।

 

 

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে কমল হাসান, কাজল বলেন এমন একটি অনুষ্ঠানে উপস্থিত হতে পেরে তাঁরা গর্বিত৷ অনুষ্ঠানে বাংলায় বক্তৃতা দিতে শুরু করেন শাহরুখ খান৷ বাংলার ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসাডর তিনি৷ তবে পুরো বক্তৃতা তিনি বাংলায় দেননি৷ কিন্তু পরের বার যে চেষ্টার কসুর করবেন না, তা বলতেও ছাড়েননি বাদশা৷এবছর ফিল্ম ফেস্টিভালের অন্যতম আকর্ষণ পাড়ায় পড়ায় সিনেমা৷ ইরানের ছবি ইয়েলো দিয়ে শুরু হবে এবছরের চলচ্চিত্র 

খোদ মুখ্যমন্ত্রীও বললেন ''শাহরুখ-কাজলের বাজিগর  সিনেমা আমার ভালো লাগে।'' শাহরুখ পরের বার ধুতি পাঞ্জাবি পরে আসার কথা দিলে মমতা 'দিদি'ও ভাইকে ধুতি পাঞ্জাবি উপহার দেওয়ার কথা জানালেন। 

এই প্রদর্শনী শুধুই ক্যামেরার প্রদর্শনী নয়। ভারতীয় সিনেমার এক সোনার সময়ের ইতিবৃত্ত উঠে আসছে তেইশতম কলকাতা চলচ্চিত্র উৎসবে। যা পরবর্তী প্রজন্মকেও ভারতীয় সিনেমার এক উজ্জ্বল অধ্যায়ের সঙ্গে পরিচয় ঘটাবে।