মাদ্রাসায় জঙ্গী শিক্ষা দেওয়া হয়, দাবি ওয়াকফ বোর্ডের চেয়ারম্যানের

মাদ্রাসায় জঙ্গী শিক্ষা দেওয়া হয়, দাবি ওয়াকফ বোর্ডের চেয়ারম্যানের

মাদ্রাসা থেকে জন্ম নিচ্ছে জঙ্গী মনোভাব তাই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে এমনই পরামর্শ দিল মুসলিম সংগঠন  শিয়া সেন্ট্রাল ওয়াকফ বোর্ড।এ ব্যাপারে তিনি চিঠি দিয়েছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথকেও। চিঠিটি পাঠানো হয়েছে ক্যাবিনেট সচিবকে।
রিজভি উত্তরপ্রদেশ মাদ্রাসা বোর্ড ও দেশের অন্য সব মাদ্রাসা বোর্ড তুলে দিতে বলেছেন। তাঁর দাবি, দেশের গ্রাম-শহরে ব্যাঙের ছাতার মতো গজিয়ে ওঠা মাদ্রাসা, ইসলামি শিক্ষাকেন্দ্রগুলি কীভাবে চলছে, সে ব্যাপারে এখনই তদন্ত হোক। কেননা ‘মুসলিম মৌলবীদের’ প্রভাবে এই মাদ্রাসাগুলিতে মুসলিম পড়ুয়াদের ভ্রান্ত, বিকৃত ধর্মীয় পাঠ দেওয়া হচ্ছে, যার ফলে ওরা সমাজে এগিয়ে যাওয়ার, দেশ গঠন প্রক্রিয়ায় যুক্ত হতে পারছে না, পিছিয়ে থাকছে।
 

তিনি আরও বলেন, “মাদ্রাসাগুলোর CBSE, ICSE-র মতো এডুকেশন বোর্ডের অনুমোদন থাকা উচিত।” তিনি পরামর্শ দেন, মাদ্রাসাতে নন-মুসলিম পড়ুয়াদেরও সুযোগ দেওয়া উচিত। এবং ধর্মীয় শিক্ষার বিষয়টি ঐচ্ছিক হিসেবে রাখা দরকার। আমি এবিষয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথকে চিঠি পাঠিয়েছি। 

 

রিজ়ভির মন্তব্যের কড়া সমালোচনা করেছেন অল ইন্ডিয়া মজলিস-এ-ইত্তেহাদুল-মুসলামিন (AIMIM) প্রেসিডেন্ট আসাদউদ্দিন ওয়াইসি। তিনি রিজ়ভিকে সবথেকে বড় জোকার বলে কটাক্ষ করেন।

চিঠিতে দেশজুড়ে অভিন্ন শিক্ষাব্যবস্থা চালুর দাবি তুলেছে শিয়া ওয়াকফ বোর্ড। তাদের দাবি, মাদ্রাসাগুলিকে বাধ্যতামূলক ভাবে সিবিএসই পাঠক্রমের অধীনে আনুক কেন্দ্রীয় সরকার।