ছেলে বউকে হাঁসুয়ার কোপে দিয়ে শ্রীঘরে স্বামী

ছেলে বউকে হাঁসুয়ার কোপে দিয়ে শ্রীঘরে স্বামী

বাড়ির সামনে স্ত্রী ও ছেলেকে হাঁসুয়ার কোপ দিলেন এক ব্যক্তি, এমনই ভয়ঙ্কর দৃশ্যের সাক্ষী থাকল মালদার রতুয়ার মহানন্দাটোলার বাসিন্দারা। কিন্তু কে ঘটাল এমন নৃশংস ঘটনা? কিছুই বুঝে উঠতে পারছিলেন না প্রতিবেশীরা। কিন্তু, তদন্ত শুরু হতেই উঠে এল চাঞ্চল্যকর তথ্য।

আজ ভোরে রতুয়া ১ নম্বর ব্লকের জগবন্ধুটোলা গ্ৰামে ঘটনাটি ঘটে। সাধুচরণ মণ্ডল ওই গ্রামের বাসিন্দা। স্ত্রী রেণু মণ্ডল (৫০) ও ছেলে উত্তম মণ্ডল (১৬)। উত্তম সামসী কলেজের সেকেন্ড ইয়ারের ছাত্র। আজ ভোরে রেণুদেবী বাড়ি থেকে বেরোন। অভিযোগ, সেসময় তাঁর মাথায় ধারালো অস্ত্রের কোপ বসায় সাধুচরণ। মৃত্যু হয় রেণুদেবীর। তারপর হাঁসুয়া নিয়ে ছুটে যায় ঘরে। ঘরে ঘুমোচ্ছিল ছেলে উত্তম। তাঁর মাথায়ও হাঁসুয়ার কোপ বসায় সাধুচরণ। লেপ থাকায় প্রাণে বেঁচে যায় উত্তম। তবে গুরুতর জখম হয়। এরপর উত্তম চিৎকার চেঁচামেচি শুরু করলে আশপাশের লোকজন ছুটে আসে। পালিয়ে যায় সাধুচরণ। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মানসিক অবসাদে ভুগছিল সাধুচরণ। 

আশঙ্কাজনক অবস্থায় মালদা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে উত্তমকে। তবে কী কারণে সাধুচরণ তাঁর স্ত্রীকে খুন করল, তা এখনও স্পষ্ট নয়। প্রাথমিকভাবে জানা গিয়েছে, মানসিক অবসাদে ভুগছিলেন সাধুচরণ। অভিযুক্তের খোঁজে তল্লাশি চলছে।