নন্দীগ্রামে গৃহবধূর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার, রক্তাক্ত স্বামী পড়ে মেঝেয়

নন্দীগ্রামে গৃহবধূর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার, রক্তাক্ত স্বামী পড়ে মেঝেয়

পূর্ব মেদিনীপুরের নন্দীগ্রামে গৃহবধূর রহস্যজনক ঝুলন্ত দে উদ্ধার, মেঝেতে পড়ে রয়েছে রক্তাক্ত স্বামী, স্বামী-স্ত্রীর বিবাদের জেরেই এই ঘটনা বলে প্রাথমিক অনুমান পুলিশের। স্থানীয় সূত্রে খবর, বছরচারেক আগে উত্তম ওঝার সঙ্গে বিয়ে হয় দীপালি জানার। দম্পতির একটি ২ বছরের কন্যাসন্তানও রয়েছে। আজ সকালে দীপালিকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পান প্রতিবেশীরা। পরে উত্তমকে উদ্ধার করে নন্দীগ্রাম সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। নন্দীগ্রাম থানায় খবর দেওয়া হলে পুলিশ এসে দিপালী ওঝার দেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠায়।

 


মৃতের গলায় দাগ রয়েছে। উত্তমের পেটে ধারাল অস্ত্র দিয়ে কোপানো হয় বলে মনে করা হচ্ছে। পুলিশের প্রাথমিক অনুমান, দাম্পত্য কলহের কারণে এই ঘটনা ঘটেছে। সম্ভবত স্ত্রীকে শ্বাসরোধ করে খুন করার পর উত্তম নিজেও আত্মঘাতী হওয়ার চেষ্টা করেন।স্ত্রীকে স্বামীই খুন করেন বলে অভিযোগ গৃহবধূর পরিবারের।