ভাড়াটিয়ার পরকীয়ায় বাধা দেওয়ায় খুন হতে হল বাড়ির মালিককে

ভাড়াটিয়ার পরকীয়ায় বাধা দেওয়ায় খুন হতে হল বাড়ির মালিককে

ভাড়াটিয়াকে পরকীয়ায় বাধা দিয়েছিলেন সদ্য বিবাহিত যুবক, তার জেরে ভাড়াটিয়ার হাতেই খুন হতে হল তাঁকে, দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার সোনারপুরের ঘটনা, এই ঘটনায় অভিযুক্ত ভাড়াটিয়া ও তাঁর স্বামীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। পিন্টু নাটাগাছি এলাকায় ফুচকা বিক্রি করছিলেন।তখন হঠাৎই তাঁর উপর ঝাঁপিয়ে পড়েন মনিরুল ও রূপা। পিন্টুর বুকে বসিয়ে দেয় আস্ত এক ছুরি। ঘটনাস্থলেই রক্তাক্ত অবস্থায় লুটিয়ে পড়েন তিনি। যদিও এলাকার বাসিন্দারা তাকে ধরে ফেলে বেধড়ক মারধর করে। খবর পেয়ে সোনারপুর থানার পুলিশ ঘটনাস্থানে গিয়ে আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে MR বাঙুর হাসপাতালে ভরতি করে। মারধর করা হয় রূপাকেও। পরে মৃতের পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে রূপা ও তার শওহর নুরজামালকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।
তদন্তে নেমে পুলিশ জানতে পারে, এই ঘটনার পিছনে রয়েছে পরকীয়া। সোনারপুরে পিন্টুর বাড়িতে ভাড়া থাকতেন রূপা নস্কর ও তাঁর স্বামী নূরজামাল নস্কর। অভিযোগ, ওই বাড়িতে প্রায়ই আসতেন মনিরুল নস্কর। তার সঙ্গে বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েছিলেন রূপা।
মাত্র ২ মাস আগে বিয়ে হয়েছিল পিন্টুর। স্বামীকে হারিয়ে শোকস্তব্ধ সদ্য বিবাহিতা স্ত্রী। এই খুনের পিছনে শুধুই কি পরকীয়া নাকি ব্যবসায়িক শত্রুতাও রয়েছে, সেই দিকটিও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।