প্রেমিকের সঙ্গে ভিডিও কলে আত্মহ্ত্যা, গ্রেফতার প্রেমিক

প্রেমিকের সঙ্গে ভিডিও কলে আত্মহ্ত্যা, গ্রেফতার প্রেমিক

ফেসবুক লাইভে আত্মহত্যা ! গলায় ওড়নার ফাঁস লাগিয়ে প্রেমিকের সঙ্গে চ্যাট করতে করতেই আত্মহত্যা করে দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্রী মৌসুমি মিস্ত্রী ৷ সোনারপুরের বৈদ্যপাড়ার এই ঘটনায় মঙ্গলবার সকালেই গ্রেফতার করা হয়েছে প্রেমিক সুমন দাসকে ৷ ধৃত সুমনকে আজ বারুইপুর আদালতে পেশ করা হবে।

 

মোবাইল টাওয়ার লোকেট করে এলাকারই একটি চায়ের দোকান থেকে আরিয়ান নামে ওই যুবককে গ্রেফতার করা হয়। ধৃতের বিরুদ্ধে আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে।

আচ্মঘাতী দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রী মৌসুমী মিস্তির মোবাইল ও ডায়েরি বাজেয়াপ্ত করেছে পুলিস। তার আগে শুভ নামে এক যুবকের সঙ্গে গোপনে বিয়ে করেছিল মৌসুমী। ইদানীং সে সম্পর্কের অবনতি হয়। আরিয়ানও ফেসবুকে ভুয়ো অ্যাকাউন্ট খুলে একাধিক মেয়ের সঙ্গে সম্পর্ক রাখে। তা নিয়েও আরিয়ান ও মৌসুমীর মধ্যে সমস্যার সূত্রপাত হয়। 

রবিবার (১০ জুন) নিজের ঘর থেকে ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার হয় ক্লাস টুয়েলভের ছাত্রী মৌসুমি মিস্ত্রির। গতকাল দু’জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করে মৃতের পরিবার। আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেওয়ার মামলা রুজু করে পুলিশ। মৌসুমির পরিবারের তরফে পুলিশকে জানানো হয়, ফেসবুকে লাইভ করে আত্মহত্যা করে মৌসুমি। অভিযুক্তরা তা জানত। তবে তারা কিছুই জানায়নি। সব জেনেশুনেও চুপ করেছিল। 

 

ঘটনার আগের দিন অর্থাৎ শনিবার এক বান্ধবীর সঙ্গে বাড়ি থেকে গিয়েছিল মৌসুমি। সেদিন নাকি সুমনের সঙ্গে দেখা করে ও। সন্ধ্যায় বাড়ি ফেরে। তারপর থেকেই মনমরা ছিল। রাত ৮টা নাগাদ একটি জলসায় যায় মৌসুমি। তারপর এক আত্মীয়র সঙ্গে বাড়ি ফিরে রাতের খাবার খেয়ে শুয়ে পড়ে। প্রতিদিন সকাল ৮ টা থেকে সাড়ে আটটার মধ্যে ঘুম থেকে উঠে পড়ে মৌসুমি। রবিবার ওঠেনি। সকাল সাড়ে দশটা নাগাদ বাড়ির লোকজন জানালা খুলে মৌসুমির ঝুলন্ত মৃতদেহ দেখতে পায়।