জেলে প্রেমিকাকে গাঁজা পাচার করতে গিয়ে আটক কলেজছাত্রী

জেলে প্রেমিকাকে গাঁজা পাচার করতে গিয়ে আটক কলেজছাত্রী

দমদম হেরোইন পাচারকাণ্ডে নয়া তথ্য। জেলবন্দি প্রেমিককে অপরাধের কাজে সাহায্য করত কলেজছাত্রী বারাসতের নপাড়ার সুস্মিতা মালাকার। প্রেমিক ভগীরথের সঙ্গে ফেসবুকে আলাপ হয় সুস্মিতার। এমনকি খুনের ঘটনাতেও নাম জড়িয়েছে তার।

সূত্রের খবর,  ফেসবুকে ভগীরথ সরকারের সঙ্গে আলাপ হয় মেয়েটির ৷ বেশ কয়েকদিন ফেসবুকে শুরু হয় চ্যাটিং ৷ হয় নম্বরের আদানপ্রদানও ৷ এরপর সম্পর্ক গড়ায় প্রণয়ে ৷ মেয়েটির সঙ্গে বেশ কয়েকবার সাক্ষাৎও ভগীরথের ৷ পুলিশ সূত্রে খবর, বেশ কিছুদিন আগে খুনের মামলায় গ্রেফতার করা হয় ভগীরথ সরকারকে ৷ খুনের মামলায় নাম জড়ায় প্রেমিকারও ৷ সেসময় তাকে গ্রেফতার করা হয়নি ৷ এরপরই দমদমের সেন্ট্রাল জেলে বন্দি প্রেমিককে মাদক পাচার করত প্রেমিকা ৷ জেলের ভিতরই ভগীরথ প্রেমিকার আনা মাদক অন্য বন্দিদের বিক্রি করত বলে জানা জানা গিয়েছে ৷

 

গতকাল ভগীরথের সঙ্গে দেখা করতে আসে সুস্মিতা। সঙ্গে ছিল পাউডারের কৌটো। তার মধ্যে ছিল গাঁজা। কৌটো নিয়ে ঢুকতে গেলে কারারক্ষীদের সন্দেহ হয়। তাঁরা আটকান। খুলে দেখেন কৌটোয় আছে গাঁজা। এরপর বমাল সুস্মিতাকে গ্রেপ্তার করে দমদম পুলিশ। বাজেয়াপ্ত হয় ২৯৫ গ্রাম গাঁজা। 

 

সুস্মিতা বারাসতের ন’পাড়ার বাসিন্দা। মধ্যমগ্রামের আচার্য প্রফুল্লচন্দ্র কলেজের সংস্কৃত অনার্সের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী। তার সঙ্গে ভগীরথ সরকারের সম্পর্ক দীর্ঘদিনের। ভগীরথ আমডাঙা এলাকার দুষ্কৃতী। তার বিরুদ্ধে খুন, ডাকাতি, ছিনতাইয়ের ছটি মামলা রয়েছে।
 

পুলিসের খাতায় এর আগেও নাম ছিল বছর একুশের এই ছাত্রীর। এমনকি খুনের অভিযোগও রয়েছে তাঁর বিরুদ্ধে। ভগীরথকে জেলের বাইরে থেকে বিভিন্ন খবরাখবর পৌঁছে দিত সে।