কিশোরীর শরীরের গোপন অংশের দুটি নম্বর চিনিয়ে দিল খুনীদের

কিশোরীর শরীরের গোপন অংশের দুটি নম্বর চিনিয়ে দিল খুনীদের

প্রেমিকার শরীরের গোপন অংশে মেহেন্দি দিয়ে লেখা দুটি ফোন নম্বর! সেই ফোন নম্বরের সূত্র ধরেই খুনের কিনারা করে ফেলল পুলিশ। ফাঁস হয়ে গেল নির্মমভাবে স্টোনম্যানের কায়দায় খুনের চক্রীদের আসল চেহারা। ফাঁস হয়ে গেল খুনের মোটিভও। অনার-কিলিংয়ের শিকার বিহারের তরুণীর বাবা-দাদা ধরা পড়ে গেল অবশেষে।

৩১ অগাস্ট, ২০১৮, উদ্ধার হয় দেহ ৷ মৃতার গলায় ছিল নাইলনের ফাঁস। মাথায় আঘাতের চিহ্ন। তদন্তে নেমে প্রথমেই পুলিশের নজরে পড়ে চারটি মোবাইল নম্বর। মৃতার উরুতে মেহেন্দি দিয়ে লেখা হয়েছিল নম্বরগুলি ৷ সেই সূত্র ধরেই এক যুবকের সন্ধান পায় জামালপুর থানার একটি প্রতিনিধিদল নাগপুর থেকে ওই যুবককে নিয়ে কলকাতায় ফেরে। তাঁকে জেরা করে সোমবার রাতে গ্রেফতার করা হয় মৃতার বাবা ও দাদাকে। কলকাতার বেনিয়াপুকুর থেকে পাকড়াও করা হয় অভিযুক্ত মহম্মদ মুস্তাফা ও তাঁর ছেলে জাহিদ শেখকে।

আব্বা ও দাদার সঙ্গে গাড়িতে যাওয়ার সময় জেহানা বুঝতে পেরেছিল আব্বা তাকে খুন করতে পারে। তাই তাদের অলক্ষ্যে নিজের শরীরে লিখে রেখেছিল দুটি ফোন নম্বর। যার সূত্র ধরেই পুরো ঘটনা পরিষ্কার হয়ে যায় পুলিশের সামনে।

 

এই হত্যাকাণ্ডে ধৃত দুজনকে এদিন বর্ধমান আদালতে তোলা হয়। তাদের পুলিশ হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করবে পুলিশ। ঘটনার পুনর্নির্মাণও করা হতে পারে বলে জানিয়েছে বর্ধমান জেলা পুলিশ।