গ্রামে ২০০ টি সমবায় ব্যাঙ্ক গড়বে রাজ্য সরকার

গ্রামে ২০০ টি সমবায় ব্যাঙ্ক গড়বে রাজ্য সরকার

গ্রামে ২০০ টি সমবায় ব্যাঙ্ক তৈরির পরিকল্পনা করেছে রাজ্য সরকার‌। যেসব গ্রামে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কের কোনও শাখা নেই, সেখানে সমবায় ব্যাঙ্ক গড়ে পরিষেবা দেবে রাজ্য সরকার। বৃহস্পতিবার একথা জানালেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। এদিন নেতাজি ইনডোরে সমবায় দপ্তরের অনুষ্ঠানে তিনি জানান, ' সমবায় ব্যাঙ্কগুলিকে আরও চাঙ্গা করতে একটি উচ্চ পর্যায়ের কমিটি গড়া হচ্ছে। নেতৃত্বে থাকছেন রাজ্যের মুখ্য সচিব মলয় দে। এই কমিটি সমবায় ব্যাঙ্কগুলির অডিট, কর্মচারীদের দাবিদাওয়া, কম্পিউটার প্রশিক্ষণ, পরিচালন কমিটির উন্নয়ন এবং অভ্যন্তরীণ বিষয়গুলি খতিয়ে দেখবে। ৬ মাসের মধ্যে তিনি রিপোর্ট দেবেন। ' মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ' ‌রাজ্য চায় এই সমবায় ব্যাঙ্কগুলি পরিষেবায় ভারতের এক নম্বর ব্যাঙ্ক হয়ে উঠুক। সমবায় ব্যাঙ্কের তথ্য সংগ্রহের ওপর বিশেষ জোর দেওয়া হচ্ছে। ডিজিটালাইজেশন হচ্ছে। ই–গভর্ন্যান্স থাকছে। গ্রাহকরা যাতে সব ধরনের সুযোগ–সুবিধে পান, সেভাবেই পরিকল্পনা নেওয়া হচ্ছে। ' 
মুখ্যমন্ত্রী জানান, ইতিমধ্যেই সমবায় ব্যাঙ্কগুলির চেয়ারম্যানদের সঙ্গে তিনি কথা বলেছেন। তাঁদের দেওয়া প্রস্তাবগুলি নিয়েও আলোচনা করা হচ্ছে। সমবায় ব্যাঙ্কগুলিকে তাদের কাজে গতি আনতে হবে, ব্যাঙ্ক অফিসারদের আরও সক্রিয় হতে হবে। রাখতে হবে স্বচ্ছতা। সময়মতো গ্রাহকদের টাকা ফেরত দিতে হবে।  আবেদনকারীদের ঋণ দিতে হবে। কোনও দুর্নীতি বরদাস্ত করা হবে না। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ' ‌রাজ্যের বিভিন্ন সমবায় ব্যাঙ্ক থেকে এখনও পর্যন্ত ৩ হাজার কোটি টাকা কৃষিঋণ দেওয়া হয়েছে। আমরা সমবায় দপ্তরকে বিশেষ গুরুত্ব দিয়েছি। দপ্তরের খোলনলচে বদলানো হচ্ছে। সমবায় ব্যাঙ্ক থেকে ঋণ নেন কৃষক, ব্যবসায়ী, স্বনির্ভর গোষ্ঠী। সমবায় ব্যাঙ্কের হাল–‌হকিকত সম্পর্কে ওয়াকিবহাল আমার দুই সহকর্মী শুভেন্দু অধিকারী ও জ্যোতির্ময় কর। রাজ্য সমবায় ব্যাঙ্কগুলির আয় আরও বাড়াতে চায়। যাতে এই ব্যাঙ্কগুলি মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পারে। কর্মীদের মধ্যে বেতন–‌বৈষম্যের দিকটিও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কের ধাঁচেই গড়ে রাজ্যের সমবায় ব্যাঙ্কগুলিকে দেশের মডেল হিসেবে তুলে ধরতে চাইছি। ' 
মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ' ‌২ লক্ষের ওপর এখন রাজ্যে স্বনির্ভর গোষ্ঠী রয়েছে। এখন আমানতের পরিমাণ ৩০ হাজার কোটি টাকা। এই পরিমাণ ১ লক্ষ কোটি টাকায় নিয়ে যাওয়ার ভাবনা। এই সমবায় ব্যাঙ্কগুলির সঙ্গে যুক্ত ৮০ লক্ষ মানুষ। ২৮ লক্ষ মেট্রিক টন ধান কৃষকদের কাছ থেকে সরাসরি কিনেছে রাজ্য। এই স্বনির্ভর গোষ্ঠীর কর্মীদের স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্পের আওতায় নিয়ে আসা হবে। সমবায় ব্যাঙ্কের মাধ্যমে রাজ্যে হাজার কোটি টাকার ব্যবসা বেড়েছে। নোটবন্দির ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে গোটা দেশ। প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জির সঙ্গে এ ব্যাপারে আলোচনাও হয়েছিল। ' 
‌মুখ্যমন্ত্রী এদিন ভ্রাম্যমাণ এটিএম, মাইক্রো এটিএম উদ্বোধন করেন। কিসান ক্রেডিট কার্ড তুলে দেন উপভোক্তাদের হাতে। সুফলা ভ্যানের চাবি দেওয়া হয় আবেদনকারীদের।