ব্যাঙ্ক জালিয়াতির জেরে এবার শুরু হলো রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কের বিশেষ অডিট

ব্যাঙ্ক জালিয়াতির জেরে এবার শুরু হলো রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কের বিশেষ অডিট

এবার ব্যাঙ্ক জালিয়াতি নিয়ে একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ করতে চলেছে ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাঙ্ক। একের পর এক ব্যাঙ্ক জালিয়াতির ঘটনা সামনে আসার পর এবার রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কগুলির বিশেষ অডিট শুরু করল রিজার্ভ ব্যাঙ্ক। পাশাপাশি ঋণ দেওয়ার জন্য ইস্যু করা লেটার অব আন্ডারটেকিং (এল ও ইউ) সংক্রান্ত বিশদ তথ্য জমা দিতে সব ব্যাঙ্কের উপর চাপ বাড়াতে শুরু করেছে আরবিআই।

ব্যাঙ্কিং শিল্পমহল সূত্রের খবর, বিশেষ অডিটের ক্ষেত্রে জোর দেওয়া হচ্ছে বাণিজ্য-ঋণ মঞ্জুর করার উপর, বিশেষ করে তার জন্য ইস্যু করা লেটার অব আন্ডারটেকিং (এলওইউ) বা ব্যাঙ্ক গ্যারান্টি সংক্রান্ত জালিয়াতি নিয়ে। আসলে প্রায় ১২,৭০০ কোটি টাকার পিএনবি কেলেঙ্কারি সমেত ব্যাঙ্ক প্রতারণার বিভিন্ন ঘটনায় কৌশলে নেওয়া হয়েছে বাণিজ্য-ঋণ। স্বেচ্ছায় ঋণ খেলাপিরাও এ ধরনের ঋণকে হাতিয়ার করেই বিপুল ব্যাঙ্কঋণ আদায় করেছেন বলে অভিযোগ সংশ্লিষ্ট সূত্রের। 

ঋণ দেওয়ার জন্য ব্যাঙ্ক গ্যারান্টি হিসেবে যে সব এলওইউ ইস্যু করেছিল বিভিন্ন রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্ক, সেগুলির তথ্য চেয়ে তাদের কাছে চিঠি পাঠিয়েছে আরবিআই। ব্যাঙ্কিং মহলের অভিযোগ, কিছু অসৎ কর্মীর সঙ্গে যোগসাজশেই ওই সব ব্যাঙ্ক গ্যারান্টি বার করে পরে সেগুলি দেখিয়ে দেশে-বিদেশে ব্যাঙ্কের কাছ থেকে ঋণ আদায় করেন নীরব মোদী-মেহুল চোকসির মতো ব্যবসায়ীরা।

এই পরিস্থিতিতে বিভিন্ন এলওইউ-র পূর্ণাঙ্গ তথ্য, কোনটিতে কতটা ঋণ বকেয়া রয়েছে, ওই সব গ্যারান্টি ইস্যু করার আগে সংশ্লিষ্ট ব্যাঙ্ক যথেষ্ট নগদ হাতে রেখেছিল কি না, সেই সব তথ্যই চেয়ে পাঠিয়েছে আরবিআই। 

প্রসঙ্গত, পিএনবি-কাণ্ড ছাড়াও আরবিআইয়ের নজরে এসেছে ২০০৭-’১২-র মধ্যে ঘটা ওরিয়েন্টাল ব্যাঙ্ক অব কমার্স এর কেলেঙ্কারি। সেখানে গয়না রফতানি সংস্থা দ্বারকা দাস শেঠ ইন্টারন্যাশনালের বিরুদ্ধে প্রায় ৩৯০ কোটি টাকার ব্যাঙ্কঋণ ফেরত না দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। ২০১৫-র ব্যাঙ্ক অব বরোদা-কাণ্ডেও বাণিজ্য-ঋণ নিয়ে প্রতারণার অভিযোগও উঠেছে।