বাঘের ভয়ে গাড়ির কাঁচ বন্ধ করে ঘুম, দমবন্ধ হয়ে মৃত দুই বনকর্মী

বাঘের ভয়ে গাড়ির কাঁচ বন্ধ করে ঘুম, দমবন্ধ হয়ে মৃত দুই বনকর্মী

বন্ধ গাড়িতে দমবন্ধ হয়ে মৃত্যু হলো দুই বনকর্মীর। ঘটনাটি ঘটেছে গোয়ালতোড়ে। আজ, মঙ্গলবার সকালে গোয়ালতোড়ে বন দপ্তরের ওই বন্ধ গাড়িতে দুজনের দেহ গাড়ির দরজার লক ভেঙে দেহ উদ্ধার করেন স্থানীয় বাসিন্দারা। মৃতরা হলেন ২৮ বছরের গাড়িচালক অমল চক্রবর্তী ৩৭ বছরের বনকর্মী দামোদর মুর্মূ। বাঘ ধরার জালও ছিল গাড়িতে। গাড়িটির সব কটি জানলা লোহার জাল দিয়ে আটকানো ছিল। তাসত্ত্বেও জানলার কাচও বন্ধ করা ছিল। গাড়ির ভিতর চলছিল জেনারেটর। চালক অমল তাঁর আসন থেকে নেমে গাড়ির পিছনের অংশে দামোদরের সঙ্গেই ঘুমোচ্ছিলেন। 

এই বিষয়ে প্রাথমিক তদন্তে নেমে পুলিশের অনুমান, বাঘের আতঙ্কে গাড়ির দরজা, জানলা সব বন্ধ করে ঘুমোচ্ছিলেন ওই দুই কর্মী। জেনারেটরের গ্যাস থেকে না কি বদ্ধ গাড়িতে দমবন্ধ হয়ে মারা গিয়েছেন তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ। ‌অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা রুজু করে তদন্ত শুরু হয়েছে। দেহ দুটি ময়নাতদন্তে পাঠানো হয়েছে। খবর দেওয়া হয়েছে বনকর্মীদের বাড়িতেও।‌ 

অন্যদিকে বাঘের আতঙ্কে রয়েছেন পশ্চিমে মেদিনীপুর, বাঁকুড়া এবং ঝাড়গ্রামের মানুষ। বাঘের পায়ের ছাপ মিললেও বাঘের দেখা পাচ্ছে না বন দপ্তর। ড্রোনে নজরদারি চালিয়েও বাঘের দেখা মিলছে না।