শৃঙ্গজয় রানাঘাটের রুম্পা দাসের

শৃঙ্গজয় রানাঘাটের রুম্পা দাসের

পেশায় স্কুলশিক্ষিকা রুম্পা দাস। রানাঘাটের বাসিন্দা। পাহাড় তাঁকে টানত ছোটবেলা থেকেই। কিন্তু পাহাড়ে চড়ার নেশাটা পেয়ে বসেছিল স্বামীর সঙ্গে আলাপ হওয়ার। বিয়ের আগে এবং পরে স্বামীর সঙ্গে বেশ কয়েকবার ট্রেকিংয়েও গিয়েছেন তিনি।
কিন্তু এবার আস্ত একটা শৃঙ্গ জয় করে ফেললেন রুম্পা। হিমালয়ের ২০ হাজার ৯৫০ ফুট উচ্চতার ব্ল্যাক পিট শৃঙ্গ জয় করছেন তিনি। ৬ সেপ্টেম্বর বেলা সাড়ে দশটা নাগাদ তাঁর স্বপ্ন এবং লক্ষ পূরণ হয়। তাঁর সঙ্গে শৃঙ্গ জয় করেছেন ম্যাক (মাউন্টেনিার্স অ্যাসোসিয়েশন অব কৃষ্ণনগর)-এর আরও সাত সদস্য। যার মধ্যে রয়েছেন এভারেস্ট জয়ী বসন্ত সিংহ রায়ও। ম্যাকের মোট ১৮জন সদস্য উত্তরাখণ্ডের গাঢ়ওয়াল থেকে ব্ল্যাক পিট অভিযান শুরু করেছিলেন। সেই দলে ছিলেন আরও তিন মহিলা। যে আটজন শৃঙ্গ ছুঁয়েছেন তাঁদের মধ্যে মহিলা শুধু রুম্পাদেবী। আর সেটা ম্যাকের ইতিহাসেও প্রথম।
২০১৫ সালে ম্যাকে নাম লেখান রুম্পা। প্রথমে শুশুনিয়া পাহাড়ে প্রশিক্ষণ নেন। পরে দার্জিলিংয়েও প্রশিক্ষণ নেন। স্বামী সুমন বসু তাঁর বাপের বাড়ির পাড়ারই বাসিন্দা। তাঁর সঙ্গে আলাপের পর থেকেই পাহাড়ে অভিযান করার নেশাটা পেয়ে বসে। বিয়ের আগে ও পরে এক সঙ্গে অনেক গুলো ছোটখাট অভিযান করেছেন তাঁরা। দু’জনে এক সঙ্গে ম্যাকের সদস্য হয়ে পর্বতারোহনে যাবেন এমনটাই ছিল ইচ্ছা। কিন্তু, শুশুনিয়ায় প্রশিক্ষণ নেওয়ার সময় মেরুদণ্ডে চোট লাগায় সেই স্বপ্ন আর বাস্তবায়িত হবার নয় সুমনের। কিন্তু তিনিই রুম্পাদেবীকে উৎসাহ দিয়ে এসেছেন।
এর পরের লক্ষ্য কি ? রুম্পা বলেন, লক্ষ্য তো অনেক কিছুই আছে। কাঞ্চনজঙ্ঘা, এভারেস্ট। তবে তার আগে নিজেকে পুরোপুরি তৈরি করতে চান তিনি।