টানা বৃষ্টিতে উত্তরবঙ্গে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি

টানা বৃষ্টিতে উত্তরবঙ্গে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি

নিম্নচাপ অক্ষরেখা ও মৌসুমিবায়ুর জেরে শুক্রবার রাত থেকেই বৃষ্টি নেমেছে কলকাতা ও সংলগ্ন জেলাগুলিতে। বৃষ্টি হচ্ছে কমবেশি দক্ষিণবঙ্গের সব জেলায়। কলকাতা ও শহরতলিতে শনিবার সকাল থেকেই একনাগাড়ে চলছে বৃষ্টি। টানা বৃষ্টিতে জলমগ্ন শহর। বিপর্যস্ত রেল পরিষেবা। পূর্ব রেলওয়ের শিয়ালদহ ও হাওড়া শাখায় টানা বৃষ্টিতে ব্যাহত রেল চলাচল। কলকাতায় অধিকাংশ এলাকায় হাঁটু সমান জল জমেছে। যানজটে স্তব্ধ শহরের রাজপথ। জেলাগুলিতে পরিস্থিতি আরও খারাপ। উত্তরবঙ্গ আবার নতুন করে মুষলধারে বর্ষণ শুরু হয়েছে। ভুটান ও সিকিমের পাহাড়ে ভারী বৃষ্টির জেরে উত্তরবঙ্গের নদীগুলিতে জল বাড়তে শুরু করেছে। রবিবারও বৃষ্টি চলবে বলে জানা গিয়েছে।
উত্তরবঙ্গে বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হল না শনিবারও৷ শুক্রবার রাত থেকে টানা বৃষ্টিতে নতুন করে জলমগ্ন হয়েছে কোচবিহার, আলিপুরদুয়ার, জলপাইগুড়ি, শিলিগুড়ির বিস্তীর্ণ এলাকা জলের তলায়৷ জল বাড়ছে কালজানি, তিস্তা, রায়ডাক, মহানন্দা, বালাসন, করলা, ডিমা, মানসাই-সহ উত্তরের অন্য নদীগুলিতেও৷ দার্জিলিংয়ের লেবং কার্ট রোডে ধস নেমে লেবং-দার্জিলিং যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে রয়েছে৷ বেশ কিছু বাড়িতে ফাটলও দেখা দিয়েছে৷ বৃষ্টি মাথায় করে ঘর ছেড়ে রাস্তায় নেমে এসেছেন বাসিন্দারা৷ জলপাইগুড়িতে ভেজা রাস্তায় উল্টে যায় একটি মিনিবাস৷ আহত একাধিক৷ ঘটনায় বৃষ্টির মধ্যেই পথ অবরোধ ঝা মোড় এলাকায়৷ এনজেপি থেকে ডুয়ার্স, অসমগামী একাধিক ট্রেন বাতিল করা হয়েছে৷ 
শুক্রবার রাত থেকে শিলিগুড়িতে একশো মিলিমিটার, কোচবিহারে ২৩৩ মিলিমিটার, আলিপুরদুয়ারে ২৯৫ মিলিমিটার বৃষ্টি রেকর্ড হয়েছে৷ আলিপুরদুয়ারে অধিকাংশ ওয়ার্ড জলের তলায়৷ বৃষ্টি না কমায় জল সরতে পারেনি৷ কোচবিহারে তুফানগঞ্জ এলাকায় জল দাঁড়িয়ে রয়েছে বিভিন্ন এলাকায়৷ এদিনও সকালে জেলার আঠাশটি ত্রাণ শিবির থেকে শুকনো খাবার বিলি করা হয়েছে৷ কোচবিহারের জেলাশাসক কৌশিক সাহা বলেন, ' বন্যা পরিস্থিতি এখনও উদ্বেগজনক৷ প্রশাসনের পক্ষ থেকে চেষ্টা করা হচেছ পরিস্হিতি সামাল দেওয়ার৷ কণ্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে৷ '