শিকাগো যেতে না পারাটা একটা অশুভ চক্রান্তঃ মমতা

শিকাগো যেতে না পারাটা একটা অশুভ চক্রান্তঃ মমতা

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের শিকাগো যাওয়া হল না। তার জন্য তিনি অশুভ চক্রান্তকে দায়ী করছেন। মঙ্গলবার বেলুড়মঠে দাঁড়িয়ে এমনটাই বললেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।
১১ সেপ্টেম্বর ছিল স্বামী বিবেকানন্দের শিকাগো সম্মেলনের ১২৫ বছর পূর্তি। তাই ইচ্ছে থাক্লেও শিকাগো যেতে পারেননি মুখ্যমন্ত্রী। কারণ কোন অশুভ চক্রান্ত তাঁকে বাধা দিয়েছে, জানালেন মুখ্যমন্ত্রী। 

আমেরিকার শিকাগো শহরে বিশ্ব ধর্ম সম্মেলনে স্বামী বিবেকানন্দের বক্তৃতার ১২৫ বছর পূর্তি উপলক্ষে মঙ্গলবার বেলুড় মঠে এক অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ''আমার শিকাগো যাওয়ার ইচ্ছে ছিল। কিন্তু সৌভাগ্য বা দুর্ভাগ্যবশত সেখানে যাওয়া হল না। স্বামীজি যে হলে বক্তৃতা করেছিলেন সেখানে যেতে পারলাম না। এর পিছনে অশুভ চক্রান্ত রয়েছে। কেউ কেউ চাইছিল আমি যাতে না যেতে পারি।'' 

স্বামী বিবেকানন্দের বক্তৃতার ১২৫ বছর পূর্তি উপলক্ষে শিকাগোতে এক অনুষ্ঠানে মমতাকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিল রামকৃষ্ণ মিশন। সেখানে যাওয়ার প্রস্তুতিও নিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। কিন্তু চলতি বছরের ১১ জুন হঠাৎ তাঁকে চিঠি দিয়ে ২৬ অগস্টের ওই অনুষ্ঠান বাতিল করার কথা জানায় শিকাগোর বিবেকানন্দ বেদান্ত সোসাইটি। সেই সময়ে সোসাইটির অধ্যক্ষ স্বামী ঈশাত্মানন্দ চিঠিতে মমতাকে লিখেছিলেন, রামকৃষ্ণ মিশনের সহ-সাধারণ সম্পাদক স্বামী অভিরামানন্দের আকস্মিক মৃত্যু (বেলুড়ে গঙ্গা থেকে ৮ জুন তাঁর দেহ মেলে) এবং অন্য কিছু ‘অপ্রত্যাশিত অসুবিধার’ জন্য অনুষ্ঠানটি বাতিল করা হচ্ছে। যদিও প্রেক্ষাগৃহ ভাড়া নেওয়া থেকে শুরু করে অন্য নানা প্রস্তুতি নেওয়া হয়ে গিয়েছিল বলে রামকৃষ্ণ মিশনের দাবি। যদিও পরে নবান্ন সূত্রে জানানো হয়, রামকৃষ্ণ মিশনের তরফে ফের জানানো হয়েছিল, মমতার ২৬ অগস্টের অনুষ্ঠান পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে, একেবারে বাতিল হয়নি।

এ দিন যদিও মুখ্যমন্ত্রী সেই প্রসঙ্গে তাঁর ভাষণে বলেন, ''ওই ঘটনায় ব্যথা পেয়েছিলাম।'' তার পর স্বামীজিকে উদ্ধৃত করে তিনি বলেন, ''দেশ শাসন করো বলে মাথায় পা দিয়ে চলতে দেব না। নেতা হতে গেলে ত্যাগ করতে শিখতে হয়। নেতা সেই হয় যে দেশের-জাতির জন্য নিবেদিত প্রাণ।'' 

মমতা এর পর নাম না করে বিজেপিকে কটাক্ষ করে বলেন, ''আমি স্বামীজির হিন্দু ধর্মে বিশ্বাস করি। এই ধর্ম কোথাও থেকে আমদানি করা হয়নি। অন্য কারওর কাছ থেকে আমদানি করা ব্যাখ্যা আমি শুনব না।'' বক্তব্যের মধ্যেই তিনি বিষ্ফোরক হয়ে ওঠেন। অভিযোগ করে মমতা বলেন, “আমার সব খবর জানা আছে। কী কী কারণ দেখিয়ে আমাকে যেতে দেওয়া হয়নি। এমনকি রামকৃষ্ণ মিশন কর্তৃপক্ষকেও হুমকি দেওয়া হয়েছিল।”

মুখ্যমন্ত্রী এ দিন শিকাগো বক্তৃতার ১২৫তম বর্ষ পূর্তি উপলক্ষে রামকৃষ্ণ মিশনকে রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে ১০ কোটি টাকা অনুদান দেওয়ার কথা ঘোষণা করেন।