সর্বদল বৈঠকে পাহাড় জট অনেকটাই কেটেছে বলে মনে করা হচ্ছে, বনধ প্রত্যাহারের আর্জি মুখ্যমন্ত্রীর

সর্বদল বৈঠকে পাহাড় জট অনেকটাই কেটেছে বলে মনে করা হচ্ছে, বনধ প্রত্যাহারের আর্জি মুখ্যমন্ত্রীর

আজ উত্তরকন্যায় সর্বদল বৈঠকে পাহাড় জট অনেকটাই কাটল বলে মনে করা হচ্ছে। বিনয় তামাংদের সতেরো দফার দাবির অধিকাংশই মেনে নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বার্তা বনধ প্রত্যাহার করতে হবে। এদিকে মোর্চাও জানিয়েছে বৈঠক ইতিবাচক। পাহাড়কে সচল করতে আগামী ১৬ অক্টোবর ফের নবান্নে বৈঠকের কথা জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। তবে এদিনের বৈঠকে একবারের জন্য পৃথক গোর্খাল্যান্ড নিয়ে কোনও আলোচনা হয়নি। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এদিন বুঝিয়ে দেন কোনওভাবে রাজ্য ভাগ চলবে না। বাংলা-দার্জিলিং একসঙ্গে থাকবে। পাহাড় নিয়ে বৈঠক শেষে মুখ্যমন্ত্রী জানান আগের দিনের মতো আলোচনা সফল। বৈঠক ভাল হয়েছে। পাহাড়ে শান্তি ফেরাতে স্থায়ী সমাধান চায় রাজ্য। তিনি আরোও বলেন, পাহাড়ে বনধ প্রত্যাহার করতে হবে। সরকার চায় বনধ পুরো উঠে যাক। পাহাড়ের দলগুলির দাবি মেনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়ে দেন দার্জিলিংয়ে নাশকতায় উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত হবে। আহত-নিহতদের দেওয়া হবে ক্ষতিপূরণ। 
জানানো হয়েছে, পাহাড়ের জট কাটাতে কালীপুজোর পর ১৬ অক্টোবর আরও একটি বৈঠক হবে নবান্নে। তবে মুখ্যমন্ত্রী জানান, এখনই ত্রিপাক্ষিক বৈঠক সম্ভব নয়। সাংবিধানিক দিকগুলি খতিয়ে দেখে এই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে রাজ্য। পাহাড়ের সরকারি কর্মীদের প্রতি তাঁর বার্তা ১৫ সেপ্টম্বরের মধ্যে কাজে যোগ দিলে, পুজোয় একমাসের অগ্রিম মিলবে। পাশাপাশি তিনি ইঙ্গিত দিয়েছেন পাহাড়ে আন্দোলন তুলে নিলে দাবি মানা হবে। চা বাগানের পরিস্থিতিকে স্বাভাবিক করতে রাজ্যের ডাকে ১৪ সেপ্টম্বর ত্রিপাক্ষিক বৈঠক হবে। বনধের জেরে পাহাড়ের পড়ুয়াদের যাতে অসুবিধা না হয় তার জন্য স্কুলে ভর্তির সময় বাড়ানোর সুপারিশ করবে রাজ্য।