বাঘাযতীনের পর এবার ঢাকুরিয়া-হালতুতে ডায়েরিয়া ছড়াচ্ছে

বাঘাযতীনের পর এবার ঢাকুরিয়া-হালতুতে ডায়েরিয়া ছড়াচ্ছে

ডায়েরিয়া ছড়াচ্ছে তীব্র আকারে। বাঘাযতীন ছাড়িয়ে বার ডায়েরিয়া ছড়াল ঢাকুরিয়া-হালতু এলাকাতেও। আতঙ্কে দক্ষিণ কলকাতার বিস্তীর্ণ অঞ্চলের মানুষ। জল ফুটিয়ে খাওয়া থেকে ওষুধ দিয়ে শুদ্ধ করার মতো নানারকম সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নেওয়া হলেও আতঙ্ক পিছু ছাড়ছে না। তবে আন্ত্রিক আক্রান্ত এলাকায় জলের নমুনা পরীক্ষা করেও সন্দেহজনক কিছু খুঁজে পাননি পুরকর্মীরা।

যাদবপুর, বাঘাযতীন ও পাটুলি এলাকায় ডায়েরিয়া ছড়িয়ের পড়ার কারণ নিয়ে যথেষ্ট ধোঁয়াশা রয়েছে। কলকাতা পুরসভার ৮২টি জলের নমুনায় সন্দেহজনক কিছুই ধরা পড়েনি বলে জানিয়েছেন মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়। তিনি জানান, ' পুরসভার পরীক্ষার জল থেকে এই সংক্রমণ ছড়ানোর মতো কিছুই পাওয়া যায়নি। কিন্তু ডায়েরিয়া যে হচ্ছে এবং তার জন্য মানুষ হাসপাতালে আসছে তা ঠিক। তাই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে জলের নমুনাগুলি পরীক্ষার জন্য স্কুল অফ ট্রপিক্যাল মেডিসিনে পাঠানো হবে। সঠিক কারণ অনুসন্ধানের চেষ্টা চালাচ্ছে পুরসভা। ' 

কিন্তু রোগ ছড়াচ্ছে মহামারীর আকারে। বাঘাযতীনের পর আন্ত্রিক ছড়িয়েছে ঢাকুরিয়া ও হালতু এলাকাতেও। তেলিপাড়া, সেলিমপুর লেন অঞ্চলের শিশু-বৃদ্ধ ও মহিলা মিলিয়ে প্রায় ১০০ জন আন্ত্রিকে আক্রান্ত হয়েছেন। এম আর বাঙুরে ভরতি রয়েছেন প্রায় ৭২ জন। আক্রান্তদের কাউকে স্যালাইন দেওয়া হচ্ছে, কাউকে আবার প্রাথমিক চিকিৎসার পর ছেড়েও দেওয়া হয়েছে। সংক্রমণ ছড়িয়েছে নোনাডাঙার বিস্তীর্ণ অঞ্চলেও। মঙ্গলবার সকালেও জলের নুমনা পরীক্ষা করেন পুরকর্মীরা। কিন্তু সেখানেও কোনও জীবাণুর সন্ধান মেলেনি। তা সত্ত্বেও আন্ত্রিক ছড়িয়ে পড়ায় তীব্র আতঙ্কে সাধারণ মানুষ। 

আতঙ্কের জেরে বোতলের জল কিনে পান করছেন মানুষ। আন্ত্রিকের কারণ নিয়ে ধন্ধে চিকিৎসকরাও। আবহাওয়ার পরিবর্তনের জন্য এ ঘটনা ঘটতে পারে বলে মনে করছেন অনেকেই। কেননা, আন্ত্রিক ছড়ানোর মতো পরিস্থিতি হলে জলের নমুনায় ক্যালিফর্ম ব্যাকটেরিয়ার ন্যূনতম মাত্রা ১০ হতে হবে। কিন্তু পুরকর্মীদের পরীক্ষায় জানা গিয়েছে, জলে ক্যালিফর্ম ১ মাত্রাতেও পাওয়া যায়নি। ফলে জল থেকে আন্ত্রিক ছড়াচ্ছে না, তা প্রায় স্পষ্ট। যদিও কোনও কোনও এলাকার অধিবাসীদের অভিযোগ, জলে বিভিন্ন পোকা পাওয়া গিয়েছে। এই পরিস্থিতিতে চিকিৎসকদের পরামর্শ অন্তত আধ ঘণ্টা জল ফুটিয়ে খাওয়াই বাঞ্ছনীয়।