জেলা পরিষদের সভাধিপতির হতে চেয়ে বায়োডেটা জমা করলেন তৃণমূলের জয়ী ২৬ সদস্যই!

জেলা পরিষদের সভাধিপতির হতে চেয়ে বায়োডেটা জমা করলেন তৃণমূলের জয়ী ২৬ সদস্যই!

সবাই চাইছেন জেলা পরিষদের সভাধিপতি হতে। তাই দেরি কেন, একে একে বায়োডেটা জমা দিলেন তৃনমূলের ২৬ জন জয়ী সদস্য! সভাধিপতি পদের দাবিদার হতে শাসকের শিবিরে জমা পড়ল ২৬টি বায়োডেটা। ঘটনাটি ঘটেছে পুরুলিয়া জেলায়। কিন্তু রাজ্য তৃণমূল চাইছে জঙ্গলমহলের এই জেলায় যোগ্য জনপ্রতিনিধিকে বসাতে। তাই রাজ্য নেতৃত্বের নির্দেশেই পুরুলিয়া জেলা পরিষদের ২৬ জয়ী সদস্যই তাঁদের জীবনপঞ্জী সম্প্রতি জমা করেছেন দলের পুরুলিয়া জেলা সভাপতি তথা রাজ্যের পশ্চিমাঞ্চল উন্নয়ন বিভাগের মন্ত্রী শান্তিরাম মাহাতোর কাছে।

বুধবার তৃণমূলের পুরুলিয়া জেলা সভাপতি তথা রাজ্যের পশ্চিমাঞ্চল উন্নয়ন বিভাগের মন্ত্রী শান্তিরাম মাহাতো বলেন, “রাজ্য নেতৃত্বের নির্দেশে দলের জেলা পরিষদের জয়ী সদস্যরা ওই বায়োডেটা জমা করেছেন। আসলে একেবারে স্বচ্ছতার সঙ্গে, গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে পুরুলিয়া জেলা পরিষদের সভাধিপতি ঠিক করা হবে। যেমনভাবে আমরা নির্বাচনে জেলাপরিষদের প্রার্থী তালিকা ঠিক করেছিলাম।” 

পুরুলিয়া জেলা তৃণমূল সূত্রে জানা গিয়েছে, সভাধিপতির জন্য ২৬ জনের বায়োডেটা চাওয়া হলেও এই ‘হট সিট’–এর মূল দাবিদার কিন্তু চারজনই। ভোটের আগে তালিকাটা পাঁচ থাকলেও বিদায়ী সভাধিপতি সৃষ্টিধর মাহাতো ন’হাজারের বেশি ভোটে হেরে যাওয়ায় সেটা এখন চার হয়ে গিয়েছে। তাঁরা হলেন হেমন্ত রজক, সৌমেন বেলথরিয়া, গুরুপদ টুডু ও সুজয় বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে এই চারজন মূল দাবিদার হলেও আরও কিছু নাম উঠে আসছে। সেগুলি হলো, জেলা মহিলা তৃণমূলের সভানেত্রী তথা নারী ও শিশু কল্যাণের বিদায়ী কর্মাধ্যক্ষ নিয়তি মাহাতো, মন্ত্রী শান্তিরাম মাহাতোর ভাইপো মেঘদূত মাহাতো, বন ও ভূমি কর্মাধ্যক্ষ হলধর মাহাতো ও দলের শহিদ পরিবারের দু’বারের জয়ী সদস্য তথা জেলা সম্পাদক সুমিতা সিং মল্লর নাম।