বিশ্ববাংলা নিয়ে মন্তব্যের কারণে মুকুলকে আইনি নোটিস অভিষেকের, শর্ত, ৪৮ ঘন্টার মধ্যে ক্ষমা চাইতে হবে

বিশ্ববাংলা নিয়ে মন্তব্যের কারণে মুকুলকে আইনি নোটিস অভিষেকের, শর্ত, ৪৮ ঘন্টার মধ্যে ক্ষমা চাইতে হবে

বিশ্ববাংলা নিয়ে মুকুল রায়ের মন্তব্যের জেরে তাঁকে আইনি নোটিশ পাঠালেন অভিষেক বন্দোপাধ্যায়। গত শুক্রবার রানি রাসমনি রোডে বিজেপি-র এক জনসভা থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও অভিষেককে আক্রমণ করেন সদ্য বিজেপিতে যোগ দেওয়া মুকুল রায়। জানান বিশ্ববাংলা ও জাগো বাংলার মালিকানা অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের নামে। যদিও পালটা বিবৃতি দিয়ে তা ভুয়ো বলেই জানানো হয়েছে রাজ্য সরকারের তরফে। প্রশাসনের তরফে স্বরাষ্ট্রসচিব অত্রি ভট্টাচার্য ও তৃণমূলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় জানিয়েছেন, দুটো অভিযোগই মিথ্যা। এরপরই মুকুলের বিরুদ্ধে আইনি পথে হাঁটার সিদ্ধান্ত নেন অভিষেক।  ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে সাংবাদিক সম্মেলন করে ক্ষমা চাওয়ার শর্ত দেওয়া হয়েছে মুকুলকে। না হলে তাঁর বিরুদ্ধে দেওয়ানি বা ফৌজদারি মামলা করার কথাও উল্লেখ করা হয়েছে নোটিশে।
গত ১০ তারিখ বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পরই সভা করেন মুকুল। সেই মঞ্চ থেকে প্রাক্তন দল এবং অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ এনেছিলেন তিনি। কিন্তু তাঁর এই অভিযোগগুলি যে সম্পূর্ণ মিথ্যা, অভিষেকের পাঠানো আইনি নোটিশে সে কথা স্পষ্ট করে বলা হয়েছে। নোটিশে বলা হয়েছে, ‘মুকুল যে নথি দেখিয়েছেন তা সম্পূর্ণ মিথ্যা। অভিষেক কোনও কিছুরই মালিক নন। বিশ্ববাংলা সংক্রান্ত সমস্ত অভিযোগ মিথ্যা। ‘জাগো বাংলা’ সংক্রান্ত নথিগুলিও ভিত্তিহীন। অভিষেক এসবের কোনওটিরই শেয়ার হোল্ডার নন।’ নোটিশে আরও উল্লেখ করা হয়েছে যে, ‘তৃণমূল এবং অভিষেকের সম্মানহানির জন্যই এই সমস্ত অভিযোগ আনা হয়েছে। সদ্য অন্য পার্টিতে যোগ দিয়ে চমক দেওয়ার জন্যই এ ধরনের কথা বলেছেন তিনি। আসলে বিজেপির মধ্যে নিজের নির্ভরযোগ্যতা বাড়াতে চাইছেন তিনি।’ 
এর পাশাপাশি ওই আইনি নোটিশে শর্ত দেওয়া হয়েছে, আগামী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যেই মুকুলকে সাংবাদিক সম্মেলন করে ক্ষমা চাইতে হবে। অন্যথায় তাঁর বিরুদ্ধে ফৌজদারি বা দেওয়ানি মামলা করা হবে। যদিও এই আইনি নোটিস প্রসঙ্গে রাজ্য বিজেপি কিংবা মুকুল রায়ের পক্ষ থেকে কোনও প্রতিক্রিয়া জানানো হয়নি।